বড় রান করলেই জেতা যায় না, বুঝল ভারত

Social Share

সাড়ে তিনশ রানের কাছাকাছি লক্ষ্যমাত্রা দিয়েও ম্যাচ জিততে ব্যর্থ ভারতীয় দল। ব্যাটসম্যানদের গড়ে দেওয়া মঞ্চে ভারতীয় বোলাররা ব্যর্থ। সিরিজের প্রথম ওয়ান-ডে ম্যাচে কিউয়ি ব্যাটসম্যানদের কাছে অসহায় আত্মসমর্পণ শামি, শার্দুল, কুলদীপদের। যার ফলে সিরিজের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচে ভারতকে ৪ উইকেটে হারাল নিউজিল্যান্ড।

টি-২০ সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হয়েও মনোবল হারায়নি নিউজিল্যান্ড। বরং কেন উইলিয়ামসনহীন ব্যাটিং লাইন আপের দাপুটে পারফরম্যান্সে ভর করে কোহলিদের ৪ উইকেটে হারিয়ে তিনম্যাচের সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল কিউয়িরা। অপরাজিত শতরানে ব্যাট হাতে দলকে নেতৃত্ব দিলেন অভিজ্ঞ রস টেলর। তাকে যোগ্য সঙ্গ দেন হেনরি নিকোলস ও অধিনায়ক টম ল্যাথাম।

সেডন পার্কে টস জিতে এদিন সফরকারী দলকে প্রথমে ব্যাটিংয়ে আমন্ত্রণ জানান কিউয়ি অধিনায়ক টম ল্যাথাম। অধিনায়ক বিরাট কোহলির অর্ধশতরান (৫১), শ্রেয়স আইয়ারের অভিষেক শতরান (১০৩), কেএল রাহুলের ঝড়ো অপরাজিত ৮৮ রানের ইনিংস এদিন ভারতীয় শিবিরে রোহিত শর্মা কিংবা শিখর ধাওয়ানের অভাব বোধ করতে দেয়নি। নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ৩৪৭ রান করে ভারত।

কিন্তু নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং শুরু হতেই মনে হতে লাগল কোহলির দলের বোলাররা বুঝি মাত্রাতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী। তা সে টি-২০ সিরিজের কথা মাথায় রেখেই হোক অথবা স্কোরবোর্ডে ৩৪৭ রান দেখে। আর শুরু থেকেই সেই সুযোগটা কাজে লাগাতে থাকলেন মার্টিন গাপ্টিল-হেনরি নিকোলাসরা। ক্রিজে সেট হয়েও ব্যক্তিগত ৩২ রানে গাপ্টিল যখন শার্দুলের শিকার হলেন, নিউজিল্যান্ডের রান তখন ১৫.৪ ওভারে ৮৪।

এরপর বেশিক্ষণ স্থায়ী হল না ব্লান্ডেলের ইনিংস। মাত্র ৯ রানে আউট হন তিনি। এরপর ক্রিজে নেমে নিকোলসের সঙ্গে দলের হাল ধরলেন দলের অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান রস টেলর। ২৮.৩ ওভারে দলীয় ১৭১ রানের মাথায় শরীর শূন্যে দিয়ে নিকোলসকে রান আউট করলেন বিরাট। ৭৮ রানে ড্রেসিংরুমে ফেরেন নিকোলাস। তবে ম্যাচে মোটামুটি জাঁকিয়ে বসা নিউজিল্যান্ডকে ম্যাচ থেকে আর হারিয়ে যেতে দেননি অভিজ্ঞ টেলর। অধিনায়ক ল্যাথামকে সঙ্গে নিয়ে দলকে জয়ের দিকে নিয়ে যান তিনি।

চতুর্থ উইকেটে টেলরের সঙ্গে ১৩৮ রানের পার্টনারশিপ গড়ে ব্যক্তিগত ৬৯ রানে আউট হন অধিনায়ক টম ল্যাথাম। তবে অধিনায়ক ফিরলেও আটকে রাখা যায়নি টেলরকে। শার্দুল-কুলদীপদের উপর ব্যাট হাতে দাপট দেখিয়ে নিশামকে সঙ্গে নিয়ে ক্যারিয়ারের ২১তম শতরানটি পূর্ণ করেন টেলর। তাও আবার মাত্র ৭৩ বলে। শেষদিকে অল্প সময়ের ব্যবধানে নিউজিল্যান্ড নিশম ও গ্র্যান্ডহোমের উইকেট হারালেও তা খুব বেশি প্রভাব ফেলেনি। ১১ বল বাকি থাকতেই কাঙ্খিত জয় তুলে নেয় নিউজিল্যান্ড।

১০টি চার ও ৪টি ছয়ে ৮৪ বলে ১০৯ রানে অপরাজিত থাকেন টেলর। ম্যাচের সেরাও তিনি। শেষদিকে ৯ বলে ১২ রানে অপরাজিত থাকেন মিচেল স্যান্টনার। ২ উইকেট নিলেও ভারতের হয়ে বল হাতে ১০ ওভারে সর্বোচ্চ ৮৪ রান দেন কুলদীপ যাদব। ৯ ওভারে ৮০ রান দেন শার্দুল ঠাকুর। আগামী শনিবার অকল্যান্ডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হবে দুই দল।