বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর উন্নয়নের চাকা থেমে যায় : আমু

10
Social Share
স্টার্ফ রিপোর্টার: আজ (২৬ ডিসেম্বর) শনিবার আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, ১৪ দলের সমন্বয়ক ও 
মুখপাত্র আমির হোসেন আমু

জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘বিজয়ের ৪৯ বছরে পাকিস্তানের চেয়েও সমৃদ্ধি, ঐতিহ্য ও সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতিতে এগিয়ে বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় ভার্চুয়ালি সংযুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেঁচে থাকলে বাংলাদেশ ৪০ বছর আগেই মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হতো। বাংলাদেশ সোশ্যাল অ্যাক্টিভিস্ট ফোরাম এই সভার আয়োজন করে।

তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার পর থেমে যায় উন্নয়নের চাকা। স্বাধীনতার ৪৯ বছরের মধ্যে ৩৪ বছর রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা ছিলো স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিদের হাতে। তারা দেশের উন্নয়নের জন্য কিছুই করার চেষ্টা করেনি।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নের মাধ্যমে দেশকে উন্নয়নের মহাসড়কে নিয়ে গেছেন তার সুযোগ্যকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ১৯৭২ সালে চট্টগ্রামের বেতবুনিয়ায় বঙ্গবন্ধু যে স্যাটেলাইটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন ৪০ বছর পর তা উৎক্ষেপণ হয়েছে। মাত্র কয়েক বছরে এই যদি হয় উন্নয়নের চিত্র, তাহলে নিঃসন্দেহে বলা যায়, বঙ্গবন্ধু বেঁচে থাকলে এখন উন্নয়নশীল কিংবা মধ্যম আয়ের দেশ নয়, পৃথিবীর সব উন্নত রাষ্ট্রের কাতারে থাকতো বাংলাদেশ।

এ সময় তিনি বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখতে স্বাধীনতা বিরোধী সব অপশক্তির ও ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানান।

সোশ্যাল অ্যাক্টিভিস্ট ফোরামের প্রধান সমন্বয়ক মুফতী মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ীর সভাপতিত্বে অলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন- সাবেক রাষ্ট্রদূত ড. নিম চন্দ্র ভৌমিক, ড. একে এম ইয়াকুব হোসেন, ড. বদরুজ্জামান  ভূঁইয়া, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মতিন ভূঁইয়া, জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগের সভাপতি এম এ জলিল প্রমুখ।