বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের খুঁজতে কমিশন গঠনের প্রক্রিয়া শুরু : আইনমন্ত্রী

Social Share

আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক সংসদকে জানিয়েছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে হত্যার নেপথ্য নায়কদের খুঁজে বের করতে কমিশন গঠন করা হবে। ইতিমধ্যে কমিশন গঠনের প্রক্রিয়া নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে শুরু হওয়া সংসদ অধিবেশনে তিনি এতথ্য জানান।

সংরক্ষিত আসনের সদস্য মনিরা সুলতানার প্রশ্নের লিখিত জবাবে তিনি জানান, বঙ্গবন্ধুর খুনের সঙ্গে জড়িত দেশি-বিদেশি সংক্রান্তকারী নেপথ্য নায়কদের খুঁজে বের করতে কাদের নিয়ে কীভাবে কমিশন গঠিত হবে, তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। এ ছাড়া কমিশনের কাজের পরিধি কী হবে, ইত্যাদি নির্ধারণে সংশ্লিষ্টরা কাজ করে যাচ্ছেন।

প্রশ্নোত্তরে মন্ত্রী বঙ্গবন্ধু হত্যার মামলার রায়ের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে জানান, সম্পূর্ণ নিরপেক্ষভাবে প্রচলিত আইনে এবং প্রচলিত আদালতেই হত্যাকারীদের বিচারের ব্যবস্থা করা হয়। বিচার প্রক্রিয়া শেষ করে হত্যাকারীদের সাজা ইতোমধ্যে কার্যকর করা হয়েছে। তবে এখনও যেসব খুনী বিভিন্ন দেশে পালিয়ে এবং আশ্রয় গ্রহণ করে আছে, তাদের দেশে ফিরিয়ে আনার সব প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।

আইনমন্ত্রী আরো জানান, বর্তমান সরকার বিচারপ্রার্থী জনগণের ভোগান্তি লাঘবে সঠিক বিচারের নিশ্চয়তা প্রদান করে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। ধনী ও গরীব নির্বিশেষে সবার জন্য সমতার ভিত্তিতে সুবিচার নিশ্চিত করা এবং বিচার ব্যবস্থায় দৃশ্যমান উন্নয়ন সাধণ করে সমাজে ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠায় সরকার বদ্ধ পরিকর।

ঢাকা চিড়িয়াখানা : সরকারি দলের সদস্য এ কে এম রহমতুল্লাহর প্রশ্নের লিখিত জবাবে সংসদে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম জানান, বাংলাদেশ জাতীয় চিড়িয়াখানায় বর্তমানে ১৩৩ প্রজাতির প্রাণি, পাখি ও দৃষ্টিনন্দন অ্যাক্যুরিয়াম ফিস রয়েছে। এর মোট সংখ্যা দুই হাজার ৭২২টি।

তিনি আরো জানান, চিড়িয়াখানায় ১৭ প্রজাতির ৩৮২টি বৃহৎ প্রাণি (তৃণভোজী), ১১ প্রজাতির ৩৬টি মাংশাসী, ১৩ প্রজাতির ১৫২টি ক্ষুদ্র স্তন্যপায়ী, ৯ প্রজাতির ৬৯টি সরীসৃপ প্রাণি, ৫৭ প্রজাতির ১১৩৭টি পাখি এবং ২৬ প্রজাতির ৯৪৬টি অ্যাকুরিয়াম ফিস রয়েছে।