প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে আওয়ামী লীগকে বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক দলের শুভেচ্ছা

Social Share

দেশের প্রাচীনতম, ঐতিহ্যবাহী এবং মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্বদানকারি রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছে বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক দল, ব্যক্তিত্ব ও সংস্থা।
আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়–য়া স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘এ বছর দলের ৭১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন দেশের রাজনৈতিক ব্যক্তি, দল ও সংস্থা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, দলের নেতা-কর্মী এবং দেশের জনগণের প্রতি ভিডিও বার্তা ও লিখিত অভিনন্দন বার্তা প্রেরণ করেছে।’
এখন পর্যন্ত শুভেচ্ছা জানিয়েছে- চীনা কমিউনিস্ট পার্টি, সেন্ট্রাল ওয়ার্কার্স পার্টি, উত্তর কোরিয়া; সোশ্যাল ডেমোক্রেটিক পার্টি অব অস্ট্রিয়া; আয়ারল্যান্ডের রক্ষণশীল রাজনৈতিক দল ফাইন গ্যাল; বরিস ভি গ্রিজলিভ, চেয়ারম্যান, সুপ্রিম কাউন্সিল অব ইউনাইটেড রাশিয়া; জগৎ প্রকাশ নাড্ডা, ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি), ভারত; পল ওজনো, সিনেটর, স্টেট অব মিশিগান; পল স্ট্যাউট, চেয়ারম্যান, সোশালিস্ট পার্টি, বেভেরেন, বেলজিয়াম; ম্যানফ্রেড পেন্টজ, মেম্বার অব দি স্টেট, পার্লামেন্ট সেক্রেটারি জেনারেল, ক্রিশ্চিয়ান ডেমোক্রেটিক ইউনিয়ন, হেসে, জার্মানি; স্পেন হিউম্যান রাইটস কর্পস; এলেনা কার্লস্টর্ম, চেয়ারপার্সন, বাম দল, সুইডেন; পার্টিটো ডেমোক্রেটিও, ইতালি।
বিবৃতিতে তারা বলেন, ‘দেশের প্রাচীনতম দল হিসেবে ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠিত হয়। ধীরে ধীরে আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে দলটি বাংলাদেশের বৃহত্তম রাজনৈতিক দলে পরিণত হয়।’
তারা আরও বলেন, ‘অসাম্প্রদায়িক ও প্রগতিশীলতার নীতি ধারণ করে এই অঞ্চলের মানুষের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে দলটি। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে এদেশের জনগণ স্বাধীনতা অর্জন করে।’
বিবৃতিতে আরো বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ দেশের জনগণের ঐক্য ও সংহতি ধরে রেখে অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা সকল ক্ষেত্রে জাতীয় উন্নয়নের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক শান্তি, ঐক্য, সংহতি দৃঢ় করতে এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় অপরিসীম অবদান রেখে চলেছে।
সর্বোপরি, তারা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দল ও দলের নেতা-কর্মীদের শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি বাংলাদেশের জনগণের সুখ ও সমৃদ্ধি কামনা করেছেন এবং যে কোন পরিস্থিতিতে পারস্পরিক সহযোগিতার ভিত্তিতে কাজ করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন।
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমদ তাদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেছেন।
পুরনো ঢাকার কেএন দাস লেনের রোজ গার্ডেনে ১৯৪৯ সালের ২৩ জুন আওয়ামী মুসলিম লীগ নামে দলটি প্রতিষ্ঠা লাভ করে। তখন মুসলিম লীগের নেতাকর্মীদের অসাম্প্রদায়িক একটি অংশ বেরিয়ে গিয়ে রাজনৈতিক কর্মী সম্মেলনের মাধ্যমে পূর্ব পাকিস্তান আওয়ামী মুসলিম লীগ নামে নতুন দল গঠন করে।
প্রতিষ্ঠার সময়ই দলের অসাম্প্রদায়িক নামকরণের দাবি উঠলেও সমাজ বাস্তবতা ও তৎকালীন রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে দলটি প্রতিষ্ঠার প্রায় চারবছর পর ১৯৫৫ সালে আওয়ামী মুসলিম লীগ থেকে ‘মুসলিম’ শব্দটি বাদ দিয়ে অসাম্প্রদায়িক ও ধর্মনিরপেক্ষ নীতি গ্রহণ করে।