পশ্চিমবঙ্গে নির্বাচন: ভোটের আগে দিদিকে তুলে ধরা হচ্ছে মেয়ে রূপে

16
Social Share

ছিলেন দিদি হলেন মেয়ে। পশ্চিমবঙ্গের ভোটের আগে মমতা ব্যানার্জির ব্র্যান্ডিংয়ে পরিবর্তন আনল তৃণমূল।

আসন্ন বিধানসভা ভোটে দলের নতুন স্লোগান শনিবার সামনে আনল তৃণমূল। এক লাইনের সেই স্লোগান ‘বাংলা নিজের মেয়েকেই চায়’। এই স্লোগানকে হাতিয়ার করেই আসন্ন নির্বাচনে ‘ঝাঁপাবে’ দল- এমনটাই জানিয়েছেন তৃণমূল নেতৃত্ব।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে এতদিন তৃণমূলের বিভিন্ন স্লোগানে প্রাধান্য পেয়েছে ‘দিদি’ শব্দটি। সরকারি প্রকল্পের ক্ষেত্রেও যেমন ব্যবহার করা হয়েছে দিদি শব্দটি যেখানে বাংলার প্রশাসনিক প্রধান হিসাবে ‘দিদি’কে তুলে ধরা হয়েছে সব সমস্যা সমাধানের উপায় হিসাবে।

কিন্তু ভোটের আগে তৃণমূলনেত্রী ভোটপ্রার্থী আর তাই ব্র্যান্ডিংটা একটু অন্যভাবে করার প্রয়োজন বোধ হচ্ছে তৃণমূল আর সেই কারণে তিনি হলেন ‘বাংলার নিজের মেয়ে’।

শনিবার তৃণমূল ভবনে এই স্লোগানের আনুষ্ঠানিক সূচনা করে তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক সুব্রত বক্সী বলেন এই স্লোগানের মধ্য দিয়ে বাংলার সমস্ত মানুষের কাছে তৃণমূলের হাজার হাজার কর্মীরা পৌঁছবেন এবং মানুষকে বোঝাবেন যে বাংলার সংস্কৃতি, ঐতিহ্য ও সম্প্রীতি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের হাতেই সুরক্ষিত।

এই শ্লোগানের পেছনে আরেক কারণ হলো, বিজেপির বিরুদ্ধে ‘বহিরাগত’ তকমা আরও জোরদার করা। গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে তৃণমূলের প্রধান অভিযোগ, তারা বাংলার মানুষকে চেনেন না, বাংলার সংস্কৃতি জানেন না।

তাই মমতাকে তুলে ধরা হচ্ছে বাংলার মেয়ে হিসেবে যিনি এই রাজ্যকে, এই রাজ্যের মানুষকে এবং এই রাজ্যের সংস্কৃতিকে চেনেন। অর্থাৎ এবারের ভোটে মমতা প্রার্থী হচ্ছেন ‘বাংলার নিজের মেয়ে’ হিসাবে।

পশ্চিমবঙ্গে প্রায় ৭ কোটি ভোটারের মধ্যে প্রায় ৩.৪ কোটি মহিলা ভোটার। তাই মমতাকে নিয়ে হিসেবে তুলে ধরে মহিলা ভোটারদের সহানুভূতি আদায় করে নেওয়া ও এই স্লোগান তৈরি হওয়ার পিছনে একটি কারণ।