পর্নকাণ্ডে গ্রেফতার করা যাবে না পুনম পাণ্ডেকে, আদেশ আদালতের

83
গ্রেফতার
Social Share

পর্নোগ্রাফি মামলায় ভারতীয় অভিনেত্রী পুনম পাণ্ডেকে গ্রেফতার করা যাবে না বলে আদেশ জারি করেছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। বিচারপতি বিনীত শরণ এবং বি ভি নাগারথনার একটি বেঞ্চ এই নির্দেশ জারি করেছে। 

এর আগে মুম্বাই হাইকোর্ট পুনমের আগাম জামিন প্রত্যাখ্যান করেছিল। সেই আদেশের বিরুদ্ধে পান্ডের দায়ের করা আপিলের উপর মুম্বাইয়ের মহারাষ্ট্র সরকারকে নির্দেশ জারি করেছে ভারতের সর্ব্বোচ্চ আদালত। বিচারপতি বলেন, বিজ্ঞপ্তি জারি করুন, আবেদনকারীর বিরুদ্ধে কোন জবরদস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না। 

একটি এফআইআরে অভিনেতা শার্লিন চোপড়ার সঙ্গে নাম ছিল পুনমেরও। মুম্বাই হাইকোর্ট গত ২৫ নভেম্বর তার অগ্রীম জামিনের আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছিল। এরপর ডিসেম্বরে, সর্বোচ্চ আদালত বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টির স্বামী রাজ কুন্দ্রাকে পর্নোগ্রাফিক ভিডিও তৈরি ও তা ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে নথিভুক্ত একটি এফআইআরের ক্ষেত্রেও একই নির্দেশ জারি করেছিল।

কুন্দ্রার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির বেশ কিছু ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল। এরমধ্যে অন্যতম ছিল নারীর অশালীন প্রতিনিধিত্ব (প্রতিরোধ) আইন এবং তথ্য প্রযুক্তি আইনের অধীনে যৌন ভিডিও প্রচার। এই দুই ধারার ভিত্তিতে মামলা করা হয়েছিল। গ্রেফতারি থেকে রেহাই পেতে কুন্দ্রা প্রথমে দায়রা আদালত থেকে আগাম জামিন চেয়েছিলেন। কিন্তু তা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল। এরপরে তিনি উচ্চ আদালতে যান। সেখানে তিনি দাবি করেছিলেন যে তাকে ফাঁসানো হয়েছে। 

………………………………………………………………………………………………….

পর্নোগ্রাফি মামলায় ভারতীয় অভিনেত্রী পুনম পাণ্ডেকে গ্রেফতার করা যাবে না বলে আদেশ জারি করেছে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট। বিচারপতি বিনীত শরণ এবং বি ভি নাগারথনার একটি বেঞ্চ এই নির্দেশ জারি করেছে। 

এর আগে মুম্বাই হাইকোর্ট পুনমের আগাম জামিন প্রত্যাখ্যান করেছিল। সেই আদেশের বিরুদ্ধে পান্ডের দায়ের করা আপিলের উপর মুম্বাইয়ের মহারাষ্ট্র সরকারকে নির্দেশ জারি করেছে ভারতের সর্ব্বোচ্চ আদালত। বিচারপতি বলেন, বিজ্ঞপ্তি জারি করুন, আবেদনকারীর বিরুদ্ধে কোন জবরদস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে না। 

একটি এফআইআরে অভিনেতা শার্লিন চোপড়ার সঙ্গে নাম ছিল পুনমেরও। মুম্বাই হাইকোর্ট গত ২৫ নভেম্বর তার অগ্রীম জামিনের আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছিল। এরপর ডিসেম্বরে, সর্বোচ্চ আদালত বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টির স্বামী রাজ কুন্দ্রাকে পর্নোগ্রাফিক ভিডিও তৈরি ও তা ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে নথিভুক্ত একটি এফআইআরের ক্ষেত্রেও একই নির্দেশ জারি করেছিল।

কুন্দ্রার বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির বেশ কিছু ধারায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছিল। এরমধ্যে অন্যতম ছিল নারীর অশালীন প্রতিনিধিত্ব (প্রতিরোধ) আইন এবং তথ্য প্রযুক্তি আইনের অধীনে যৌন ভিডিও প্রচার। এই দুই ধারার ভিত্তিতে মামলা করা হয়েছিল। গ্রেফতারি থেকে রেহাই পেতে কুন্দ্রা প্রথমে দায়রা আদালত থেকে আগাম জামিন চেয়েছিলেন। কিন্তু তা প্রত্যাখ্যান করা হয়েছিল। এরপরে তিনি উচ্চ আদালতে যান। সেখানে তিনি দাবি করেছিলেন যে তাকে ফাঁসানো হয়েছে।