পঞ্চগড়ে বেপরোয়া চালক, প্রাণ গেল শিশুর

পঞ্চগড়ে তেঁতুলিয়া উপজেলায় বাসচালকের বেপরোয়া ড্রাইভিংয়ে রিশা আক্তার (৬) নামে এক শিশু নিহত হয়েছে। বাসের চাকায় পিষ্ট হয়ে ওই শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। এ সময় ওই শিশুর বাবা রবিউল ইসলাম গুরুতর আহত হন। তাকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে প্রথমে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতাল ও পরে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

শনিবার সকালে তেঁতুলিয়া উপজেলার দেবনগর ইউনিয়নের সাতমেরা এলাকায় পঞ্চগড়-বাংলাবান্ধা মহাসড়কে (জেমকনের পোল তৈরি কারখানার সামনে) এই দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত রিশার বাড়ি ওই এলাকাতেই। সে ভজনপুর ইসলামী নূরানি কিন্ডারগার্টেনে শিশু শ্রেণিতে পড়ত।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয়রা জানায়, সকালে প্রতিষ্ঠান ছুটি হলে বাবার সাথে মোটরসাইকেলযোগে বাড়ি ফিরছিল। বাড়ির সামনে পৌঁছালে তেঁতুলিয়া থেকে পঞ্চগড়গামী আর ইসলাম এন্টারপ্রাইজের একটি যাত্রীবাহী বাস বেপরোয়াগতিতে তাদের মোটরসাইকেলটিকে ধাক্কা দিলে চাপা পড়েন তারা। ঘটনাস্থলেই মারা যায় রিশা। তার বাবা রবিউল ইসলামকে গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। পরে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়। এদিকে বাসটি ওই ওই শিশু ও তার বাবাকে চাপা দিয়ে কিছুদূর গিয়েই নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে সড়কের পাশের ডোবায় পড়ে যায়। এ সময় ওই বাসের ছয়জন যাত্রী আহত হন। তারা পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফেরেন। ঘটনার পরেই চালক পালিয়ে যায়। এ সময় ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা প্রায় কয়েক ঘণ্টা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখে।

ওই বাসের যাত্রী আব্বাস আলী বলেন, শুরু থেকেই চালক বেপরোয়া ড্রাইভ করছিল। মূলত চালকের ভুলের জন্যই ওই শিশুটির প্রাণ গেল। তেঁতুলিয়া হাইওয়ে থানার ওসি আব্দুল্লাহ হেল বাকী বলেন, ঘটনার পরই চালক পালিয়ে গেছে। তবে বাসটি আটক আছে। নিহত শিশুকে আইনি প্রক্রিয়া শেষে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় মামলার প্রক্রিয়া চলছে বলেও তিনি জানান।