নৌকা হবে কারঃ এক নৌকার মাঝি হতে চায় চার

2235
Social Share

তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচন শেষ।নীলফামারিতে অধিকাংশ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন নৌকার প্রার্থীরা।এখন পঞ্চম ধাপের মনোনয়ন সংগ্রহ চলছে। নীলফামারী জেলার ডোমার উপজেলার ৬নং পাংগা মটুকপুর ইউনিয়ন এ নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশি চারজন।প্রত্যেকেই হেভিওয়েট নেতা।রয়েছে নিজ নিজ জনপ্রিয়তা। এই ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান এমদাদুল ইসলাম এন্দা যিনি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। তিনি শতভাগ আশাবাদী যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা গতবারের ন্যায় এবারো তার উপরেই আস্থা রাখবেন। তাকেই মনোনয়ন দেবেন।এর ব্যাখ্যায় তিনি বলেন,আমি এখানে নৌকা মার্কা নিয়ে উপনির্বাচনে জয়লাভ করেছি।কিন্তু প্রথম বারে যাকে নৌকা দেয়া হয়েছিলো তিনি দুই হাজার ভোট পাননি।তাই,আমি শতভাগ আশাবাদী যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকেই এই ইউনিয়নের নৌকার মাঝি বানাবেন।উল্লেখ্য যে,গতবারের নির্বাচনে এখানে নৌকার মনোনয়ন দেয়া হয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি দুলাল হোসেন কে।কিন্ত তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী মৃত আব্দুল মজিদের কাছে ব্যাপক ব্যবধানে পরাজিত হন।এরপর তিন বছরের মাথায় মজিদ চেয়ারম্যান এর মৃত্যু হলে উপনির্বাচনে এমদাদুল ইসলাম নৌকা প্রতীকে জয়লাভ করেন।
এবারো নৌকার মাঝি হতে প্রাণপণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বর্তমান সভাপতি দুলাল।
আরেক প্রার্থী বাবুল কন্ট্রাক্টর।তিনিও ব্যাপক জনপ্রিয় । তার রয়েছে বড় কর্মী বাহিনী। রয়েছে অনেক টাকা।বিভিন্ন সভা-সমাবেশ অব্যাহত রয়েছে তার।
এছাড়াও পাংগার হাট ভাটিয়া পাড়া থেকে জাহিদুল ইসলাম ও নৌকার মাঝি হতে চান।সব প্রার্থীই এখন ঢাকায়। বিভিন্ন কেন্দ্রীয় নেতাদের দ্বারেদ্বারে ঘুরছেন। এখন দেখার বিষয় কার ঘরে যায় নৌকা।কে পান টিকেট।
আরও উল্লেখ থাকে যে এই উপজেলার ৭ নং বোড়াগাড়ি ইউনিয়নে নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশি বর্তমান চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম রিমুন।তিনি উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক। তিনিও উপনির্বাচনে এই ইউনিয়নের নৌকার টিকেটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।
এছাড়াও নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, উপজেলা চেয়ারম্যান তোফায়েল আহমেদ এই সহোদর মঞ্জুর আহমেদ ডন।তিনি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। উভয়েই শতভাগ আশাবাদী নৌকার মাঝি হওয়ার ব্যাপারে।
বলতেই হয় জমে উঠেছে ডোমার। জমে উঠেছে নির্বাচন।