নির্মাণাধীন ভবনে এডিস মশার প্রজননস্থল থাকলে ব্যবস্থা নেবে ভ্রাম্যমাণ আদালত

নির্মাণাধীন ভবনগুলোতে এডিস মশার প্রজননস্থল পাওয়া গেলে ব্যবস্থা নেবে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে ভ্রাম্যমাণ আদালত। সম্প্রতি ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগ বেড়ে যাওয়ায় মশার প্রজননস্থল রোধে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)।

আজ সোমবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ঢাকা শিশু হাসপাতালে ডেঙ্গুতে আক্রান্ত শিশুদের দেখতে গিয়ে এ ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত জানান ডিএসসিসি মেয়র সাঈদ খোকন।

মেয়র বলেন, যেসব ভবনে এডিস মশার প্রজননস্থল বা প্রজনন হতে পারে এমন পরিবেশ পাওয়া যাবে, সেগুলোর মালিকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নির্মাণাধীন ভবনে ডেঙ্গু ও চিকুনগুনিয়া রোগের বাহক এডিস মশার প্রজনন অন্যান্য জায়গার চেয়ে বেশি জানিয়ে তিনি বলেন, বিভিন্ন ভবন মালিকদের আমরা এ বিষয়ে সচেতন হতে বলেছি এবং তাদের সতর্ক থাকতে বলেছি। যেনো তাদের ভবনে এডিস মশা প্রজননের পরিবেশ সৃষ্টি না হয়। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে, তারা এ বিষয়ে আমাদের সহযোগিতা করছেন না। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি, এসব ভবনে প্রয়োজনে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হবে। আর যেসব ভবনে এডিস মশার প্রজনন স্থল বা লার্ভা পাওয়া যাবে, সেসব ভবন মালিকদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সাঈদ খোকন বলেন, চলতি মাসে অর্থাৎ জুলাই থেকে ডেঙ্গুর আসল মৌসুম শুরু হয়েছে। সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ঝুঁকি আছে। আমাদের ৬৮টি মেডিকেল টিম কাজ করছে, ৫৭টি ওয়ার্ডে পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম চলছে। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাসহ বিভিন্ন সংস্থা ও বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে আমরা নিয়মিত যোগাযোগ রাখছি। পরিস্থিতি উদ্বেগজনক, তবে নিয়ন্ত্রণের বাইরে না। তাই আমাদের সবাইকে সচেতন হয়ে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।