নির্বাচনে হারার আগেই হেরে যায় বিএনপি : সেতুমন্ত্রী

ফাইল ছবি
Social Share

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশে যে কোন নির্বাচন এলেই বিএনপি তার স্বরে চিৎকার শুরু করে,তারা নির্বাচনে হারার আগেই হেরে যায়।
আজ সোমবার ঢাকা-মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের পাশে মুন্সীগঞ্জ সড়ক বিভাগের অধীন নবনির্মিত পরিদর্শন বাংলো ‘পদ্মা’-র উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথ বলেন। ওবায়দুল কাদের তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলন, নির্বাচনে হারার আগেই বিএনপি হেরে যায়। দেশে নির্বাচন না হলে বগুড়া থেকে মির্জা ফখরুল সাহেব কীভাবে জয় পেয়েছিলেন? বিএনপি জিতলে সব ঠিক আর না জিতলে সব বেঠিক, এ মনস্তাত্ত্বিক বিভ্রান্তি ও দ্বন্দ্ব থেকে বিএনপি’কে বেরিয়ে আসতে হবে।
সরকার জনসমর্থন ছাড়া টিকে আছে বিএনপি’র মহাসচিবের এমন অভিযোগের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, সাম্প্রতিক নির্বাচনগুলোর দিকে তাকালে পরিষ্কারভাবে দেখা যায়, অধিকাংশ ক্ষেত্রে বিএনপি’কে জনগণ প্রত্যাখান করেছে। বিএনপি আন্দোলন এবং নির্বাচন দুটোতেই পরাজিত হয়েছে এবং জনগণ তাদের প্রত্যাখ্যান করেছে।
তিনি বলেন, জনসমর্থন আছে কি নেই তার মানদন্ড কী? সে অভিন্ন মাপকাঠিতে বিএনপি কী জনসমর্থন মেপে দেখেছেন? নির্বাচন যদি মানদন্ড হয় সেক্ষেত্রে সাম্প্রতিক নির্বাচনগুলোর দিকে তাকালে বিএনপির অবস্থান স্পষ্ট।
সেতুমন্ত্রী বলেন, আন্দোলন ও নির্বাচনে ব্যর্থ হয়ে জনগণ যাদের বার বার প্রত্যাক্ষান করে তাদের মুখে এমন কথা শোভা পায় না।
ওবায়দুল কাদের বলেন, জাতীয় সংসদের আসন্ন ৫ টি আসনে উপনির্বাচনে ১টি আসনের মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে, অন্য আসন গুলোতে তফসিল ঘেষণার পর প্রার্থী বাছাই বা চূড়ান্ত করতে দলীর সভাপতির উপর মনোনয়ন বোর্ড সর্বসম্মতিক্রমে দায়িত্ব অর্পণ করেছে।
রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় বিভিন্ন সিটি কর্পোরেশন এবং পৌরসভায় মশক নিধন ও পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা অভিযান জোরদারের আহ্বান জানান তিনি।
ভিডিও কনফারেন্সে অন্যান্যর মাঝে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম, সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. শাহারিয়ার হোসেন, ঢাকা সড়ক জোনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সবুজ উদ্দীন খানসহ সওজ সদর দপ্তর, ঢাকা সড়ক জোন এবং মুন্সীগঞ্জ সড়ক বিভাগের কর্মকর্তাগণ সংযুক্ত ছিলেন।
উল্লেখ্য, ঢাকা-মাওয়া মহাসড়কের পাশে সদ্যনির্মিত সড়ক পরিদর্শন বাংলো পদ্মা’র নির্মাণ ব্যয় হয় প্রায় সাত কোটি সাত লাখ টাকা। পদ্মা সেতু প্রকল্পের ক্ষতিপূরণের অর্থে নির্মিত হয়েছে এ পরিদর্শন বাংলো।