নাক ডাকা হতে পারে স্বাস্থ্যঝুঁকির কারণ

142
নাক ডাকা
Social Share

ঘুমের মধ্যে নাক ডাকা স্বাভাবিক হলেও স্বাস্থ্যঝুঁকির কথা চিন্তা করে কিছু বিষয় খেয়াল রাখা দরকার।

ঠাণ্ডা লাগা বা অ্যালার্জি নাসিকাগ্রন্থিতে বাধার সৃষ্টি করে। ঘুমানোর আগে কিছু বিশেষ পানীয় পান এই সমস্যার সমাধান করতে পারে।

নাসিকা গ্রন্থিতে এমন বাধা রাতে ঘুমের মধ্যে নাক ডাকার অন্যতম কারণ।

“নাক ডাকা জোরে হলে বা নিরবিচ্ছিন্নভাবে এমনটা দেখা দিলে অথবা শ্বাসের সমস্যা সৃষ্টি করলে তা নিয়ে সচেতন হওয়া প্রয়োজন” বলেন রবিন্স।

‘আমেরিকান একাডেমি অব স্লিপ মেডিসিন’ অনুযায়ী, এই বিষয়ে সতর্ক না হলে তা টাইপ-২ ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, দুশ্চিন্তা বা হতাশা এমনকি অকাল মৃত্যু ঘটাতে পারে।

ক্লান্তি

দিনে খুব বেশি ক্লান্ত থাকা রাতে ভালো ঘুমের ব্যঘাত ঘটায়। ফলে নাক ডাকাও প্রবল হয়।
রবিন্সের মতে, “দিনে যাদের ঘুম ঘুম ভাব দেখা দেয় তাদের রাতে নাক ডাকার জোরালো সম্ভাবনা থাকে।”
‘স্লিপ ফর সাকসেস’ বইয়ের সহকারী লেখক রবিন্স আরও বলেন, “যারা দিনের যে কোনো সময় যে কোনো জায়গায় ঘুমিয়ে যেতে পারেন তাদের মাঝে অধিকাংশই হন দুর্বল ও ক্লান্ত। আর এদের মাঝে নাক ডাকার প্রবণতাও বেশি।”

উচ্চ রক্তচাপ

‘অবস্ট্রাকটিভ স্লিপ অ্যাপনিয়া’ অতিরিক্ত দুশিন্তার কারণেও দেখা দেয়। কয়েক সেকেন্ড শ্বাস বন্ধের ফলে দেহে রক্তচাপ বেড়ে যায়। ফলে দেহে মানসিকচাপ বৃদ্ধিকারী হরমোন ‘কেটেকোলামিঞ্জ’ বাড়ে। আর এটাও রক্তচাপ আরও বৃদ্ধি করে।”
দুশ্চিন্তা অনিদ্রার অন্যতম কারণ। তাই ‘অবস্ট্রাকটিভ স্লিপ অ্যাপনিয়া’র চিকিৎসায় ‘কন্টিনিউয়াস পজিটিভ এয়ারওয়ে প্রেশার’ বা সিপিএপি কেবল ‘স্লিপ অ্যাপনিয়া’র জন্য নয় তা রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেও সহায়তা করে।

বয়স

বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে পেশি দুর্বল হতে থাকে। তাই পঞ্চাশ পেরুলে অনেকেরই নাক ডাকার সমস্যা দেখা দেয় যা ‘অবস্ট্রাক্টিভ স্লিপ অ্যাপনিয়া’তে পরিণত হতে পারে।
গবেষণায় দেখা গেছে, বেশি বয়সে এই সমস্যা দেখা দেওয়া কম বয়সে হওয়ার চেয়ে কম ঝুঁকিপূর্ণ।

ঘাড় ও গলা

যাদের গলার গড়ন বংশগতভাবেই খানিকটা লম্বা তাদের ‘স্লিপ অ্যাপনিয়া’ হওয়ার ঝুঁকি থাকে।
ডা. দাশগুপ্তা জানান, পুরুষের জন্য গলার মাপ ১৭ ইঞ্চির বেশি হওয়া এবং নারীদের জন্য এই মাপ ১৬ ইঞ্চির চেয়ে বেশি হওয়া আশঙ্কাজনক।

Read more:

Americans Are Going To Be Paying The Price Barrasso Rips Biden Over Energy Costs

আরও পড়ুনঃ

ক্যালরির হিসাব রাখতে পারলে ওজন বেশি কমানো যায়