তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়কে বিজেপিতে স্বাগত জানালেন দিলীপ ঘোষ

47
Social Share

ডেস্ক রিপোর্ট: বিধানসভা ভোটের আগে তৃণমূল ত্যাগের হিড়িক। যাতে করে অস্বস্তিতে রাজ্যের শাসকদল। এবার বেসুরো হলেন তৃণমূল সাংসদ শতাব্দী রায়। বৃহস্পতিবার অভিনেত্রীর ফেসবুক পোস্ট নিয়ে জল্পনা ছড়ায়। এরপর শুক্রবার তৃণমূল ত্যাগের বিষয়ে নিজের মন্তব্য জানান শতাব্দী। এই পরিস্থিতিতে বীরভূমের সাংসদকে গেরুয়া শিবিরে স্বাগত জানালেন রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ (Dilip Ghosh)।

এদিন সকালে শতাব্দী রায় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, তৃণমূলে সমন্বয়ের অভাব রয়েছে। এদের কোনওদিন এক সুর ছিল না। লাঠি ও পুলিশের ভয়ে সবাই এক সুরে কথা বলতে বাধ্য হতেন। বাঁধন ঢিলে হতেই একের পর এক সকলে মনের কথা প্রকাশ করছেন। বিজেপিতে যোগদানের বিষয়ে দিলীপ ঘোষ বলেন, সবাইকে স্বাগত।

এদিকে, এ প্রসঙ্গে তৃণমূল নেতা সৌগত রায় বলেছেন, দলের তরফে বিষয়টি দেখা হচ্ছে। শতাব্দীকে ফোনে পাওয়া যায়নি। শুক্রবার সকালে শতাব্দী বলেন, আমি আজ দিল্লি যাচ্ছি। সেখানে আমার বন্ধু, আত্মীয়-পরিজনদের সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছি। স্ট্যান্ডিং কমিটির বৈঠকও রয়েছে। তিন বারের সাংসদ আরও বলেন, পরিচিত মানুষদের সঙ্গে দেখা হতেই পারে। তবে সেটাকে বৈঠক বলা ভুল হবে। আমি বলছি না যে অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করবোই। তবে সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছি না। ওনার সঙ্গে মিটিং করতেই যাচ্ছি এমনটা নয়। দেখা হওয়াটা অস্বাভাবিক কিছু নয়।

এর আগে বৃহ্স্পতিবার বিকালে ‘শতাব্দী রায় ফ্যান ক্লাব পেজ’ থেকে একটি পোস্ট করেন সাংসদ। সেখানে লেখেন, ২০২১ খুব ভালো কাটুক। সুস্থ থাকুন, সাবধানে থাকুন। এলাকার সঙ্গে আমার নিয়মিত নিবিড় যোগাযোগ। কিন্তু ইদানিং অনেকে প্রশ্ন করছেন, কেন আমাকে বহু কর্মসূচিতে দেখা যাচ্ছে না। তাঁদের বলছি, আমি সর্বত্র যেতে চাই। আপনাদের সঙ্গে থাকতে আমার ভালো লাগে। কিন্তু মনে হয় কেউ কেউ চায় না, আমি আপনাদের কাছে যাই। বহু কর্মসূচির খবর আমাকে দেওয়া হয় না। না জানলে আমি যাব কী করে? এ নিয়ে আমারও মানসিক কষ্ট হয়। গত দশ বছরে বাড়ির থেকে বেশি সময় আপনাদের কাছে বা আপনাদের প্রতিনিধিত্ব করতে কাটিয়েছি, আপ্রাণ চেষ্টা করেছি কাজ করার, এটা শত্রুরাও স্বীকার করে। তাই এই নতুন বছরে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়ার চেষ্টা করছি যাতে আপনাদের সঙ্গে পুরোপুরি থাকতে পারি।১৬ জানুয়ারি চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাব।