তিন প্রকল্পে বিশ্বব্যাংকের ৩৫০ মিলিয়ন ডলার তহবিলের অনুমোদন

Social Share

ঢাকা, ১ এপ্রিল, ২০২০ (বাসস) : বিশ্বব্যাংক তিনটি বৃহৎ প্রকল্পে সহায়তায় বাংলাদেশকে ৩৫০ মিলিয়ন ডলার অনুদানের অনুমোদন করেছে।
আজ এখানে প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বিশ্বব্যাংকের দেয়া এই অর্থে মূলত: রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী ও হোস্ট কমিউনিটির স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়ন, লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা কমানো, সামাজিক নিরাপত্তা বৃদ্ধি, মৌলিক সেবা ও অবকাঠামোগত উন্নয়নের প্রকল্প পরিচালিত হবে।
বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ ও ভূটানের কান্ট্রি ডিরেক্টর মার্সি টেমবন বলেন, ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ মানবিক নেতৃত্বের এক মহান নজির সৃষ্টি করেছে। কিন্তু, স্থানীয় জনগোষ্ঠীর প্রায় তিনগুণ রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিতে গিয়ে কক্সবাজার জেলার টেকনাফ ও উখিয়া উপজেলার সামগ্রিক পরিবেশ ও অবকাঠামো হুমকির মুখে পড়েছে। এই তহবিলের মাধ্যমে উভয়পক্ষের ক্ষতি কমিয়ে আনার চেষ্টা করতে হবে।
এছাড়া এই তহবিল প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি প্রশমন এবং জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলার বিভিন্ন খাতে ব্যবহার করা যাবে বলে জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক।
বিশ্বব্যাংকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ৩৫০ মিলিয়ন ডলারের মধ্যে ১৫০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে রোহিঙ্গা এবং স্থানীয় জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং জেন্ডার ইস্যুতে। এতে কক্সবাজার জেলায় রোহিঙ্গাসহ ৩৬ লাখ মানুষের স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়ন, লিঙ্গভিত্তিক সহিংসতা কমানোর খাতে ব্যয় করা হবে।
কক্সবাজারে শিশু মৃত্যুর হার জাতীয় গড়ের চেয়ে বেশি। প্রকল্পটিতে রোহিঙ্গা ক্যাম্পের অভ্যন্তরে নারী-বান্ধব চিকিৎসা সেবাসহ জেলায় স্বাস্থ্য সেবার মান উন্নত করা হবে। প্রকল্পটি চিকিৎসকদের শূন্য পদ পূরণ করতেও সহায়তা করবে এবং পর্যাপ্ত চিকিৎসা সমাগ্রী সরবরাহ নিশ্চিত করবে।
রোহিঙ্গা শিবিরের মধ্যে এই প্রকল্পটি মনস্তাত্বিক পরামর্শ, টিকা, যক্ষ্মার চিকিৎসা ও পুষ্টিসেবা দেবে।
১০০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে সরাসরি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর সাহায্যার্থে। এটি ব্যয় হবে পানি স্যানিটেশন এবং দুর্যোগ প্রতিরোধে বিভিন্ন ধরনের অবকাঠামো নির্মাণে।
বাকি ১০০ মিলিয়ন ডলার ব্যয় হবে সরাসরি স্থানীয় জনগোষ্ঠীর জীবনমান উন্নয়নে। সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং কর্মসংস্থান বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ অনুদান ব্যয় হবে।