ড. হুমায়ুন আজাদকে বিনম্র শ্রদ্ধা

47
Social Share

সাজ্জাদ কবির: বহুমাত্রিক জ্যোতির্ময় অধ্যাপক ও লেখক ড. হুমায়ুন আজাদের গতকাল ছিল ৭৪তম জন্মদিন। জন্মদিনে আমাদের অশেষ বিনম্র শ্রদ্ধাঞ্জলি এ মহৎ মানুষটির প্রতি।

ড. হুমায়ুন আজাদ কবি, ঔপন্যাসিক, সমালোচক, ভাষাবিজ্ঞানী, প্রাবন্ধিক, রাজনীতিবিশ্লেষক ও কিশোর সাহিত্যিক। তিনি আমাদের সময়ের বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে প্রধান, অজস্র অগুনতি বামুনের মাঝে প্রবল প্রমিথিউস। এ সব্যসাচী মহৎ লেখক এক কালের শ্রেষ্ঠ মনীষা ও অহংকার। তিনি ভাষা ও সাহিত্যের সব এলাকায় ছিলেন অসামান্য, অদ্বিতীয়। যেমন মেধা তেমন প্রতিভা। যেমন সৃষ্টিশীলতায় তেমনি মননশীলতায়। তাঁর মতো আর কেউ নেই মেধা ও প্রতিভায়, এমন অসামান্য মিলন এ সময় আর কারও মধ্যে ঘটেনি।

তিনি ছিলেন মূর্তিভঙ্গকারী। তিনি কোনো মূর্তির পূজা করেননি এবং বহু নন্দিত মূর্তিকেই ভেঙেছেন। তুচ্ছদের প্রাধান্যের কালে তিনি বেঁচে ছিলেন নিঃসঙ্গ মহাবৃক্ষরূপে। যিনি ছিলেন সৌন্দর্যমন্ডিত কবি, তিনিই আবার এক বড় পন্ডিত, যা বাংলা ভাষা সাহিত্যে বিরল।

হুমায়ুন আজাদ বাংলাদেশের প্রধান লেখক, যিনি মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে প্রতিরোধে প্রথম অঙ্গীকার। তিনি ‘ব্লাড ব্যাংক’ কবিতার মাধ্যমে স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখেছেন এবং মুক্তিযুদ্ধে ছিলেন শব্দসৈনিক হিসেবে, তেমনি ‘পাক সার জমিন সাদ বাদ’-এর মাধ্যমে জঙ্গিমুক্ত বাংলাদেশের প্রস্তাব করেছেন। যার প্রতিফলন আমরা দেখতে পাচ্ছি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ‘জঙ্গিমুক্ত’ বাংলাদেশের জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে। তাঁর খুনি মদদদাতা জঙ্গি মৌলবাদীদের বিচার যথাসময়ে হলে আজ বাংলাদেশে মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদের বিস্তার ঘটাত না। মৌলবাদ ও জঙ্গিদের কর্মকান্ডে অসুস্থ হয়ে তিনি লিখেন,

‘যখন আমরাই আমাদের স্বাধীন স্বদেশ

তখন ভুলেও কখনো আমাকে তুমি বাংলাদেশের কথা জিজ্ঞেস করো না;

আমি তা মুহূর্তেও সহ্য করতে পারব না- তার অনেক কারণ আছে।

তোমাকে মিনতি করি কখনো আমাকে তুমি বাংলাদেশের কথা তুলে কষ্ট দিয়ো না।

জানতে চেয়ো না তুমি নষ্ট ভ্রষ্ট ছাপান্নো হাজার বর্গমাইলের কথা; তার রাজনীতি। অর্থনীতি, ধর্ম, মিথ্যাচার, পালে পালে মনুষ্যমন্ডলী, জীবনযাত্রা, হত্যা, ধর্ষণ।

মধ্যযুগের দিকে অন্ধের মতোন যাত্রা সম্পর্কে প্রশ্ন করে আমাকে পীড়ন করো না।

আমি তা মুহূর্ত সহ্য করতে পারি না- তার অনেক কারণ রয়েছে।

তার ধান খেত এখনো সবুজ, নারীরা এখনো রমণীয়, গাভীরা এখনো দুগ্ধবতী। কিন্তু প্রিয়তমা, বাংলাদেশের কথা তুমি কখনো আমার কাছে জানতে চেয়ো না।

আমি তা মুহূর্ত সহ্য করতে পারি না-তার অনেক কারণ রয়েছে।’

না, তিনি কখনো বাংলাদেশ মৌলবাদী জঙ্গিদের দ্বারা একটি বাংলাস্থান বা আফগান হয়ে উঠবে তা সহ্য করতে পারেননি। তিনি অকুতোভয়ে ১৯৭১ সালের পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কর্তৃক প্রণীত সংবিধানের অসাম্প্রদায়িক ধর্মনিরপেক্ষতা, সামরিক শাসনের তীব্র বিরোধিতা ও নারীবাদী বক্তব্যের জন্য ব্যাপক পাঠক গোষ্ঠীর গ্রহণযোগ্যতা পান। তিনিই প্রথম বাংলাদেশে মৌলবাদ ও জঙ্গিদের বিরুদ্ধে আশির দশক থেকে তাঁর লেখনীর মাধ্যমে বৃহৎ জনগোষ্ঠীকে মুক্তিযুদ্ধের চিন্তা ও চেতনায় এগিয়ে নেন। তিনি সময়ের সাহসী সন্তানদের একজন যিনি বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের ভয়াবহ তান্ডবের সময় ২০০৪ সালে মৌলবাদ ও জঙ্গিবাদ বিরোধী অবিস্মরণীয় সৃষ্টি ‘পাক সার জমিন সাদ বাদ’ গ্রন্থের মতো প্রতিবাদী গ্রন্থ রচনা করেন।

এ মহৎ লেখকের আদর্শ ও চেতনায় ছিল মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ। তিনিই সর্বপ্রথম জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে বাংলাদেশের মহাস্থপতি বলে তাঁর ‘আমরা কি এই বাংলাদেশ চেয়েছিলাম’ গ্রন্থে উল্লেখ করেন। তার পর থেকে মহাস্থপতি/স্থপতি শব্দটি বঙ্গবন্ধুর নামের আগে বহুলভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। তিনি লিখেন, ‘আমাদের রাজনৈতিক জীবনে মুজিব অতুলনীয়’। কচ্ছপ বেঁচে থাকে কয়েক শ বছর আর সিংহ বাঁচে কয়েক বছর; কচ্ছপ হচ্ছে কচ্ছপ আর সিংহ হচ্ছে সিংহ। তিনি আরও লিখেন, ‘মুজিবকে আমি কখনো কাছ থেকে দেখিনি, আমি বীরপূজারি নই, বেশ দূর থেকে কয়েকবার দেখেছি। তাঁর স্তব কখনো করিনি; সত্য হচ্ছে মুজিব মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক, বাংলাদেশের মহাস্থপতি।’ তিনি লিখেন, ‘শেখ মুজিবের ছবি স্থির এবং এটা শুধু দেয়ালের ছবি নয়। শেখ মুজিবের ছবি সমস্ত বাংলাদেশেই অঙ্কিত রয়েছে এতে কোনো সন্দেহ নেই। স্বাধীনতা শৈল্পিক বা কাব্যিক ব্যাপার নয়, ওটা রাজনীতি;

১৯৭১ সালে ওই রাজনীতির আকাশে একটাই নক্ষত্র ছিল, তাঁর নাম সূর্য ছিল না, ছিল শেখ মুজিব।’ তিনি কয়েকটি অবিস্মরণীয় অভিধায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে অভিষিক্ত করেছেন যা তাঁর আগে কেউ আর করেনি।

১৯৭১ সালের ১৪ ডিসেম্বর পাকিস্তান হানাদার বাহিনীর দোসর রাজাকার আলবদররা হত্যা করেছে বুদ্ধিজীবীদের। সম্ভবত জাতির জনক বাংলাদেশের মহাস্থাপতিকে তাঁর পরিবারের অনেক প্রিয়জনসহ হত্যা করেছে একই চক্র। হুমায়ুন আজাদ স্বাধীন বাংলাদেশে ওই প্রতিক্রিয়াশীল রাজাকার, আলবদর, মৌলবাদীদের প্রথম সুপরিকল্পিত হত্যার শিকার।

২০০৪ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি বাংলা একাডেমির একুশে বইমেলা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ফুলার রোডের বাসায় ফেরার পথে আণবিক শক্তি কমিশনের উল্টো দিকে মৌলবাদী জঙ্গিদের দ্বারা আক্রান্ত হয়ে গুরুতর আহত হন। তাঁকে প্রথম ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, পরে সম্মলিত সামরিক হাসপাতালে নেওয়া হয়। এর দুই মাস পর ২৮ এপ্রিল তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

লেখক : সভাপতি, ড. হুমায়ুন আজাদ ফাউন্ডেশন।