চীনের প্রতি পক্ষপাতিত্ব দেখাচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, অভিযোগ ট্রাম্পের

ফাইল ছবি
Social Share

নোভাল করোনা ভাইরাসের উৎসস্থল চীনের উহান শহর। গত একমাসে ধীরে ধীরে এই ভাইরাস গোটা বিশ্বকে গ্রাস করে ফেলেছে। আর মানবজাতি এখন করোনাভাইরাসের কাছে অসহায়। তবে গত বুধবার সাংবাদিক সম্মেলনে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যেই অভিযোগটি তুললেন, তাতে আবারও রাজনীতির গন্ধ আসতে লাগল।

এর আগে রিপাবলিকান সেনেটর মার্কো রুবিও একই কথা বলেছিলেন ‌বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’র সম্পর্কে। তার মতে, এই করোনা পরিস্থিতিতে ‌বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যেন শুরু থেকেই চীনের দিকে একটু নরমভাবে তাকাচ্ছে। এই প্রসঙ্গে কথা বলার সময়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পও মার্কো রুবিও’র সুরেই সুর মেলালেন।

এমনকি, ‌বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’র ডিরেক্টর টেড্রস অ্যাঢানম ঘিব্রিয়েসিসের সততা নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। মার্কো রুবিও বলেছেন, তার অতীতে বেশ কিছু লাল পতাকার গল্প রয়েছে। সেখান থেকেই বোঝা যায়, তার সঙ্গে চীনের সম্পর্ক কীরকম।

কংগ্রেসম্যান গ্রেগ স্টুবে টুইট করে বলেছেন, ‌করোনা ভাইরাসের এই পরিস্থিতিতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা যেন চীনের মুখপত্র হয়ে কাজ করছে। করোনার এই ভয়াবহতা নিয়ন্ত্রণে চলে এলে এর জন্য তাদের ফল ভোগ করতে হবে।

‌সেনেটর যশ হলের গলায়ও স্টুবেরই প্রতিধ্বনি। শুধু তাই নয়। করোনা দমনের জন্য চীনের প্রশংসা করেছে বলেও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে নিন্দার মুখে পড়তে হয়েছে। বলা হয়েছে, বেজিংয়ের সঙ্গে আলোচনা করে করোনা ভাইরাসের কথা বিশ্বের কাছে চেপে গেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

এই প্রসঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্টের মতামত জানতে চাইলে ট্রাম্প বলেন, অনেকেই তো পছন্দ করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’র কার্যকলাপ। কিছুতো অন্যায়, অনুচিত বিষয় ঘটছেই। কোথাও না কোথাও চীনের প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা’র একটা পক্ষপাতিত্ব নজরে পড়ছেই।

খবর ইকোনোমিক টাইমস’র