চীনা কমিউনিস্ট পার্টির শততম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ড: ইঞ্জিনিয়ার কাশেমের প্রবন্ধ উপস্থাপন

58
Social Share

চীনের কমিউনিস্ট পার্টির ১০০তম বার্ষিকী উপলক্ষে বেইজিংএ অনুষ্ঠিত শীর্ষ সম্মেলনে (৬ই জুলাই) বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক ডঃ ইন্জিঃ এম এ কাসেম আমন্ত্রিত হয়ে অন-লাইনে যোগদান করেন । বিশ্বের ১৬০টি দেশের ৫০০ এর উর্ধে রাজনৈতিক দল এবং সামাজিক সংগঠনের প্রধান নেতৃবৃন্দের এই মহাসমাবেশে সিপিসি-এর সাধারণ সম্পাদক ও চীনের প্রেসিডেনট শী জিনপিং “জনগণের মংগলের লক্ষ্যে যৌথভাবে প্রচেষ্টা করার জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে শক্তিশালী সহযোগিতা বৃদ্ধি করার” প্রয়োজনীয়তার ওপর মূল বক্তব্য পেশ করেন ।
শতবর্ষ উপলক্ষে সিপিসি-এর ওয়েব-সাইটে ডঃ কাসেমের নিবন্ধ এবং চীনের জাতীয় দৈনিক “বেইজিং ডেইলি”-তে দিল্লি থেকে অন-লাইনে গৃহীত ডঃ কাসেমের ইন্টারভিউ প্রকাশিত হয়েছে। এসকল লেখায় তিনি চীনের কমিউনিস্ট পার্টির দীর্ঘ ত্যাগ, মার্কসবাদ-লেনিনবাদ এবং মাও সে তুং এর চিন্তার সৃজনশীল (অন্ধভাবে নহে) প্রয়োগ এবং বিভিন্ন সমস্যার মধ্যে অপরাজেয় সাহস, দৃঢ় এবং বলিষ্ঠ নেতৃত্বে চীনের জনগণের অসামান্য উন্নয়নের বিষয়; এবং পারস্পরিক সাহায্য-সহযোগিতা ও ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা দ্বারা সার্বজনীন অংশগ্রহণের ভিত্তিতে সমগ্র মানবজাতির জন্য যুদ্ধমুক্ত, শান্তিপূর্ন, পরিবেশ বান্ধব, সবুজ পৃথিবী গড়ার সুদূরপ্রসারী লক্ষ্য নিয়ে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক শী জিনপিং এর “ভিশন”
-এর উল্লেখ করেন।
এ ছাড়াও তিনি শান্তি আন্দোলনের কয়েকজন সহযোগীকে নিয়ে ঢাকায় – “চীন : মাত্র ৭০ বছরে একটি যুদ্ধবিধ্বস্ত, দরিদ্র ও পশ্চাদপদ দেশ থেকে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশে উন্নয়ন” – শীর্ষক অন-লাইন সেমিনার করেছেন (৯ই জুলাই)। এই সেমিনারে চীনের শান্তি পরিষদের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল- ডঃ টাও টাও এবং এশিয়া-প্যাসিফিক অন্চলের পরিচালক পু যুআংগী বেইজিং থেকে অন-লাইনে অংশগ্রহণ করেন।
এই সেমিনারে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন – মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ডঃ নজরুল ইসলাম, বি আই ডি এস- এর ডাইরেক্টর জেনারেল অধ্যাপক ডঃ বিনায়ক সেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ডঃ এম এম আকাশ, চীনে বাংলাদেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত মুন্সী ফয়েজ আহমদ, বাংলাদেশ শান্তি পরিষদের প্রাক্তন সাধারণ সম্পাদক ডঃ ইন্জি এম এ কাসেম। নির্ধারিত বক্তব্যের পর দর্শক-শ্রোতাগন প্রানবন্ত আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন । চীন সম্পর্কে নানা প্রশ্ন উত্থাপিত হলে, তা নিয়ে আলোচনা করেন ডঃ টাও টাও । সমাপনী ভাষন দেন বাংলাদেশের সর্বজনশ্রদ্ধেয় বরেন্য অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ডঃ খলিকুজ্জামান আহমদ।