চিন সীমান্তে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে, আশ্বাস সেনাপ্রধান নরবণের

চিন সীমান্তে উত্তেজনা নিয়ন্ত্রণে বলে জানালেন সেনাপ্রধান এমএম নরবণে।
Social Share

সীমান্ত-সঙ্ঘাত নিয়ে ভারত ও চিনের মধ্যে সেনা পর্যায়ের বৈঠক শুরু হয়েছে গত শনিবার। তার এক সপ্তাহের মাথায় সেনাপ্রধান জেনারেল মনোজ মুকুন্দ নরবণে জানিয়ে দিলেন, এখন দু’দেশের সীমান্তে গোটা পরিস্থিতিই নিয়ন্ত্রণে। তাঁর মতে, সেনা কমান্ডারদের মধ্যে একাধিক বার বৈঠকের পর ভারত ও চিন দু’পক্ষই বেশ কিছু সেনা সরিয়ে নিয়েছে। যে সমস্ত বিষয়গুলি নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে মতপার্থক্য হয়েছিল তা-ও মিটে যাবে বলে আশাপ্রকাশ করেছেন নরবণে।

মে মাসের শুরুর দিকে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলএসি) বরাবর উত্তর সিকিম থেকে পূর্ব লাদাখের মধ্যে একাধিক জায়গায় সীমান্ত লঙ্ঘনের অভিযোগ ওঠে চিনা বাহিনীর বিরুদ্ধে। পরিস্থিতি এতটাই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে যে গলওয়ান উপত্যকা, প্যাংগং তট-সহ একাধিক এলাকায় ভারত ও চিন মুখোমুখি সেনা সমাবেশ করায়। দু’দেশের মধ্যে উত্তেজনার সেই পারদ এখন অনেকটাই নিম্নমুখী বলে শনিবার জানিয়ে দিয়েছেন সেনাপ্রধান। সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে এ দিন নরবণে বলেন, ‘‘আমি সকলকে আশ্বস্ত করছি, চিন লাগোয়া সীমান্ত জুড়ে গোটা পরিস্থিতিই নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। আমরা ধারাবাহিক ভাবে আলোচনা চালাচ্ছি। দু’পক্ষের কোর কমান্ডার স্তরে বৈঠক শুরু হয়েছিল এবং স্থানীয় কমান্ডারদের স্তরে তা চালিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।’’

এর পাশাপাশি সেনাপ্রধান আরও বলেন, ‘‘ওই বৈঠকের ফল হিসাবে দু’পক্ষই অনেক বাহিনী সরিয়ে নিয়েছে এবং আমরা আশাবাদী, এই আলোচনার মাধ্যমে আমাদের (ভারত ও চিন) মধ্যে সমস্ত মতভেদ মিটে যাবে।’’

শুক্রবার ভারত ও চিনের মধ্যে পঞ্চম দফায় মেজর জেনারেল পর্যায়ে বৈঠক হয়। চিন সীমান্তবর্তী পূর্ব লাদাখের পরিস্থিতি বর্তমানে কোন পর্যায়ে রয়েছে তা প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংহকে ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন নরবণে। সংবাদ সংস্থা পিটিআই সূত্রে খবর, আলোচনার মাধ্যমে দু’পক্ষের বিতর্কের অবসান ঘটানোর বিষয়টিতেই জোর দিচ্ছে নয়াদিল্লি। সূত্রের খবর, চিনা বাহিনীর একটি বিপুল অংশ ইতিমধ্যেই তিন কিলোমিটার সরে গিয়েছে। চিনের বার্তায় সাড়া দিয়ে বেশ কিছু সেনা প্রত্যাহার করেছে ভারতও।