চিনকে বিরাট ধাক্কা দিতে চলেছে ভারত, এবার নজরে ৩৭০টি চিনা পণ্য

Social Share

নয়াদিল্লি: সুরক্ষার প্রশ্নে প্রথম দফায় ৫৯টি এবং পরে ৪৭টি চিনা অ্যাপ ব্যান করেছে ভারত সরকার। এবার চিন থেকে নিম্নমানের পণ্য আমদানি নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে নয়া রণকৌশল প্রস্তুত করছে কেন্দ্রীয় সরকার। সেই লক্ষ্যে ৩৭০টি চিনা পণ্যের মান নির্ধারণের নয়া মাপকাঠি স্থির করা হয়েছে। কেন্দ্রীয় বাণিজ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, ২০২১ সালের মার্চ মাস থেকেই ভারতীয় মানদণ্ড (ইন্ডিয়ান স্ট্যান্ডার্ডস বা আইএস) অনুযায়ী ওই ৩৭০টি চিনা পণ্যের গুণমান নির্ধারণ বাধ্যতামূলক করা হবে।

৩৭০টি পণ্যের মধ্যে রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য, খেলনা, কাগজ, কাঁচ, রাবারের জিনিস, ভারী যন্ত্রপাতি, স্টিল বার, স্টিল টিউব, ইস্পাত এবং ধাতব পাইপ ইত্যাদি। কেন্দ্রীয় সরকার বেশিরভাগ এমন পণ্যকেই মান নির্ধারণের নয়া মাপকাঠিতে এনেছে যেগুলি মূলত চিন থেকে আমদানি করা হয়। মোদী সরকারের এই পদক্ষেপ চিনা পণ্য আমদানিতে বাধা সৃষ্টি করবে। এবং এটি আত্মনির্ভর ভারত উদ্যোগকে সফল করতে সাহায্য করবে। এর ফলে চিনের উপর নির্ভরতা কমবে।

তবে নয়া নির্দেশিকার কোথাও চিন বা অন্য কোনও দেশের নাম উল্লেখ করা হয়নি। তবে তালিকা থেকে স্পষ্ট, ওই ৩৭০টি পণ্যের অধিকাংশরই চিন থেকে আমদানি করা হয়।

বিআইএস-এর ডিরেক্টর জেনারেল প্রমোদকুমার তিওয়ারি বলেন, নিম্নমানের পণ্য আমদানি ঠেকানোর লক্ষ্যেই এই পদক্ষেপ। সেই লক্ষ্যে ৩৭০টি দ্রব্যের তালিকা করা হয়েছে। প্রাথমিক ভাবে তিনটি সরকারি বন্দর— কান্দলা, জেএনপিটি (মুম্বাই) এবং কোচিনে এই কাজের জন্য আমাদের অফিসারদের পাঠানো হচ্ছে। শুল্ক দফতরের সঙ্গে যৌথ ভাবে কাজ করবে তাঁরা।

তবে শুধু আমদানি ক্ষেত্র নয় ‘ওয়ান নেশন ওয়ান স্ট্যান্ডার্ড’ নীতি মেনে অভ্যন্তরীণ উৎপাদনের ক্ষেত্রেও মান নির্ধারণের বিষয়টিকে গুরুত্ব দেবে কেন্দ্র। দেশের বিভিন্ন উৎপাদন ক্ষেত্র ও বাজারগুলিতে নজরদারি পাঁচগুণ বাড়ানো হবে। পণ্যের দাম এবং অন্যান্য প্যাকেজিং স্ট্যান্ডার্ড যেমন উৎপাদক দেশ, উৎপাদনের তারিখ এবং মেয়াদ শেষ হওয়ার পরে বিক্রি রুখতে কড়া নজরদারি চালানোর জন্যও ব্যুরোকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।