চিতার লেলিহান শিখা ছুঁয়েছে ভারতের আকাশ!

35
Social Share

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ভারতে সুনামিতে রূপ নিয়েছে। একদিন আগেই দৈনিক সংক্রমণে আমেরিকাকে পেছনে ফেলে রেকর্ড করেছে দেশটি। বৃহস্পতিবার ভারতে সংক্রমণের সংখ্যা ৩ লাখ ১৫ হাজারের মতো। শুক্রবার এই সংখ্যা গিয়ে পৌঁছে প্রায় ৩ লাখ ৩৩ হাজারে।

শুক্রবার দেশটিতে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৩২ হাজার ৭৩০ জন। এ নিয়ে দেশটিতে মোট আক্রান্ত হলেন ১ কোটি ৬২ লাখ ৬৩ হাজার ৬৯৫ জন।

এদিকে, গত ২৪ ঘণ্টা করোনা প্রাণ কেড়েছে ২ হাজার ২৬৩ জনের। এ নিয়ে মহামারীর শুরু থেকে করোনায় মোট ১ লাখ ৮৬ হাজার ৯২০ জনের মৃত্যু হলো দেশটিতে। মোট আক্রান্তের নিরিখে বিশ্বে দ্বিতীয় এবং মোট মৃত্যুর হিসাবে বিশ্বে চতুর্থ অবস্থানে রয়েছে ভারত।

করোনা ভয়াবহ এই পরিস্থিতিতে দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা কাজ করেও শ্মশানে ফুরোচ্ছে না লাশের সারি। উপায়ন্তর না দেখে জ্বালানো হচ্ছে গণচিতা।

Bangladesh Pratidin

দিল্লির এক শ্মশানে চলছে কোভিডে মৃত রোগীর শেষকৃত্যের প্রস্তুতি। একই চিত্র সারা দেশের।

Bangladesh Pratidin

ভোপালের শ্মশানেও জ্বলছে সারিবদ্ধ চিতা। কোভিডে প্রাণ হারানো মানুষের অন্ত্যেষ্টি চলছে।

Bangladesh Pratidin

মহামারির সঙ্গে যুদ্ধে তারা পরাজিত। গাজিয়াবাদের হিন্দনঘাট শ্মশানে প্রকাশ্যেই পর পর রাখা আছে দেহগুলি। মৃত্যুর পরেও অপেক্ষা…!

Bangladesh Pratidin

দিল্লির এক শ্মশানঘাটে গণচিতার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কোভিডরোগীর মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে যাওয়ায় এ ব্যবস্থা।

Bangladesh Pratidin

জম্মুর একটি শ্মশান। স্বাস্থ্যকর্মী ও মৃতের পরিজনরা পিপিই পরে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায়।

Bangladesh Pratidin

মহারাষ্ট্রের এক শ্মশানঘাট। দেশটির সবচেয়ে বেশি ভুক্তভোগী রাজ্য। যেখানে আক্রান্ত, মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। পঞ্চভূতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে কোভিডে মৃতদের নশ্বর দেহ।

Bangladesh Pratidin

মহারাষ্ট্রের পালঘর জেলার ভাসাইয়ের শ্মশানেও দেখা যায় একই ছবি। সারিবদ্ধ চিতায় শেষকৃত্য সম্পন্ন হচ্ছে কোভিডে মৃতদের।

সূত্র: আনন্দবাজার।