গণপরিবহনে টিকিটে ১৪ টাকা বাড়ল

69
গণপরিবহনে
Social Share

ডিজেল ও কেরোসিনের দাম বাড়ায় পূর্বঘোষণা ছাড়াই ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে বাস ভাড়া প্রতি টিকিটে ১৪ টাকা বাড়ানো হয়েছে। বুধবার (৩ নভেম্বর) রাত ১২টায় প্রতি লিটার জ্বালানি তেলের দাম ১৫ টাকা বাড়ানোর ঘোষণার পর গণপরিবহনে প্রতিটি টিকিটের দাম ১৪ টাকা বাড়ানো হয়েছে।

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে পূর্বঘোষণা ছাড়াই গণপরিবহনে ভাড়া বাড়ায় যাত্রীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। অনেক যাত্রী কাউন্টারের লোকদের সঙ্গে তর্কে জড়িয়েছেন।

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে চলাচল করা পরিবহন মালিকরা বলছেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়ায় বাস ভাড়া বাড়ানো ছাড়া বিকল্প কোনো পথ নেই। তাই বাসের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে। সবকিছুর দাম বেড়েছে। তাই তারা বাধ্য হয়েই বাস ভাড়া বাড়িয়েছেন।

পূর্বঘোষণা ছাড়া গণপরিবহনের ভাড়া বাড়ানোর বিষয়ে কাউন্টারে থাকা লিয়াকত আলী বলেন, যেখানে জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে, সেখানে বাসের ভাড়া বাড়বেই। আগামীকাল সিদ্ধান্ত নিয়ে বাসের ভাড়া বাড়ানোর কথা রয়েছে। কিন্তু এখন যদি আগের ভাড়ায় বাস চালাতে হয় তাহলে লোকসান গুনতে হবে বাস মালিকদের। আর বাস বন্ধ রাখলে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটের যাত্রীরা চরম ভোগান্তিতে পড়বেন।

বৃহস্পতিবার (৪ নভেম্বর) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত শহরের কেন্দ্রীয় বাসটার্মিনাল ও চাষাঢ়া বাসস্ট্যান্ডে গিয়ে মালিকপক্ষ ও যাত্রীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকাগামী বন্ধন পরিবহন, উৎসব পরিবহন, আনন্দ পরিবহন ও শীততাপ নিয়ন্ত্রিত শীতল পরিবহনের বাসের ভাড়া বাড়ানো হয়েছে।

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটে বন্ধন ও উৎসব পরিবহনের ভাড়া ৩৬ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০ টাকা, আনন্দ পরিবহন ৩২ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৩৫ টাকা আর শীতল পরিবহনের ৫৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৬৫ টাকা করা হয়েছে। তবে আগের ভাড়া ৩০ টাকায় চলাচল করছে বিআরটিসির দ্বিতল বাস।

নারায়ণগঞ্জ থেকে ঢাকা গিয়ে একটি বেসরকারি অফিসে চাকরি করেন তাইজুল ইসলাম। তিনি বলেন, গতকাল রাতেও ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ ৩৬ টাকায় গিয়েছি। কিন্তু সকালে শুনি ৫০ টাকা। এভাবে চলতে থাকলে আমাদের মতো কোটি কোটি সাধারণ মানুষ প্রতিনিয়ত ভোগান্তির মধ্যে পড়বেন।

বন্ধন পরিবহনের বাসচালক ফারুক বলেন, যন্ত্রপাতির দাম বেড়েছে। তেলের দাম বেড়েছে। এমনিভাবে যতকিছু আছে সবকিছুর দাম বেড়েছে। তাহলে আমরা কী করব? মালিকপক্ষ নিরুপায় হয়ে বাসের ভাড়া বাড়িয়েছে।