ক্ষুব্ধ প্রতিক্রয়া জানিয়ে মোদি-মমতাকে খোলা চিঠি দিলেন প্রসেনজিৎ

93
প্রসেনজিৎ
Social Share

জনপ্রিয় ভারতীয় অভিনেতা প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জি খুবই বাজে অভিজ্ঞতার শিকার হলেন অনলাইনে। তিনি অ্যাপ খাবারের অর্ডার দিয়েও পাননি। বিষয়টি নিয়ে তিনি এতই বিরক্ত যে ক্ষোভ জানিয়ে খোলা চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। খবর জি নিউজের।

ভারতীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, চিঠির শুরুতেই প্রসেনজিৎ চলতি উৎসবের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তাদের। তারপর যে অনলাইন ফুড ডেলিভারি সংস্থা তাকে অর্ডার নিয়েও খাবার সরবরাহ করেনি তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়েছেন।

এই অভিনেতা লিখেছেন, গত ৩ নভেম্বর তিনি খাবার অর্ডার করেন। তবে অর্ডারটি ‘ডেলিভার্ড’ দেখালেও তা- তার বাসায় পৌঁছায়নি। সঙ্গে সঙ্গে তিনি অ্যাপটিকে বিষয়টি জানালে- তারা সমস্যা শুনে টাকা রিফান্ড করে দেয়।

তবে প্রসেনজিতের অভিযোগ অন্য বিষয়ে, তিনি লিখেছেন- অতিথিদের জন্য খাবার অর্ডার করে যদি কেউ একটি অনলাইন ফুড ডেলিভারি সংস্থার উপর নির্ভর করে নিশ্চিন্ত হয়ে বসে থাকেন এবং শেষ পর্যন্ত খাবার না পান, কেমন দাঁড়ায় বিষয়টা? তবে কি খিদে সহ্য করেই বসে থাকবেন?

তিনি বলেন, এই ধরনের নানা অস্বস্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে, যা মোটেই বাঞ্ছনীয় নয়। তাই প্রসেনজিৎ মনে করেছেন, বিষয়টি সকলকে জানানো দরকার। তাই তিনি টুইট করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি উদ্দেশ্য করে এই বার্তা দিয়েছেন।

জনপ্রিয় ভারতীয় অভিনেতা প্রসেনজিৎ চ্যাটার্জি খুবই বাজে অভিজ্ঞতার শিকার হলেন অনলাইনে। তিনি অ্যাপ খাবারের অর্ডার দিয়েও পাননি। বিষয়টি নিয়ে তিনি এতই বিরক্ত যে ক্ষোভ জানিয়ে খোলা চিঠি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে। খবর জি নিউজের।

ভারতীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, চিঠির শুরুতেই প্রসেনজিৎ চলতি উৎসবের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন তাদের। তারপর যে অনলাইন ফুড ডেলিভারি সংস্থা তাকে অর্ডার নিয়েও খাবার সরবরাহ করেনি তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়েছেন।

এই অভিনেতা লিখেছেন, গত ৩ নভেম্বর তিনি খাবার অর্ডার করেন। তবে অর্ডারটি ‘ডেলিভার্ড’ দেখালেও তা- তার বাসায় পৌঁছায়নি। সঙ্গে সঙ্গে তিনি অ্যাপটিকে বিষয়টি জানালে- তারা সমস্যা শুনে টাকা রিফান্ড করে দেয়।

তবে প্রসেনজিতের অভিযোগ অন্য বিষয়ে, তিনি লিখেছেন- অতিথিদের জন্য খাবার অর্ডার করে যদি কেউ একটি অনলাইন ফুড ডেলিভারি সংস্থার উপর নির্ভর করে নিশ্চিন্ত হয়ে বসে থাকেন এবং শেষ পর্যন্ত খাবার না পান, কেমন দাঁড়ায় বিষয়টা? তবে কি খিদে সহ্য করেই বসে থাকবেন?

তিনি বলেন, এই ধরনের নানা অস্বস্তিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে, যা মোটেই বাঞ্ছনীয় নয়। তাই প্রসেনজিৎ মনে করেছেন, বিষয়টি সকলকে জানানো দরকার। তাই তিনি টুইট করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি উদ্দেশ্য করে এই বার্তা দিয়েছেন।