কুষ্টিয়ার ঘটনা ধর্মব্যবসায়ীদের উস্কানিমূলক বক্তব্যের বহিঃপ্রকাশ: ঢাবি শিক্ষক সমিতি

5
Social Share

দেশের রাজনৈতিক ও ধর্মব্যবসায়ী মহল থেকে গত কয়েকদিনে ভাস্কর্য নিয়ে যেসব ‘উস্কানিমূলক’ বক্তব্য দেয়া হচ্ছে, কুষ্টিয়ার ঘটনা তারই বহিঃপ্রকাশ বলে মন্তব্য করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি। আজ রবিবার সমিতির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অধ্যাপক মো. লুৎফর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মো. নিজামুল হক ভুইয়া স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে এই মন্তব্য করা হয়।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার দিবাগত রাতে কুষ্টিয়ার পাঁচ রাস্তার মােড়ে কতিপয় দুর্বৃত্ত কর্তৃক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মাণাধীন ভাস্কর্য ভাঙচুর করা হয়েছে। বিবৃতিতে এই ঘটনাকে ‘রাষ্ট্রবিরােধী অপকর্ম’ আখ্যা দিয়ে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

এছাড়া, এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত অপরাধীদের গ্রেফতারের মধ্য দিয়ে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের জোর দাবিও জানান তারা।

বিবৃতিতে বলা হয়, মহান বিজয়ের মাসে রাতের আধারে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি এই অবমাননা নিঃসন্দেহে স্বাধীনতাবিরােধী শক্তির কাজ; যারা স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশকে অকার্যকর ও পশ্চাদপদ এক রাষ্ট্রে পরিণত করতে চায়।

বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ বলেন, আজ থেকে প্রায় ৫১ বছর পূর্বে এই ৫ ডিসেম্বরেই বঙ্গবন্ধু পূর্ব পাকিস্তানের পরিবর্তে আমাদের দেশের নাম বাংলাদেশ হিসেবে ঘােষণা করেছিলেন; ঐতিহাসিক এ দিনটিতেই কিছু অকৃতজ্ঞ ও বেঈমান তার নির্মাণাধীন ভাস্কর্যে আঘাত করে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ-শক্তির হৃদয়কে ক্ষতবিক্ষত করেছে।স্বাধীন দেশ, জাতীয় পরিচয়, সার্বভৌমত্ব ও আত্মর্যাদাবােধ যেই মহান নেতার অবর্ণনীয় ত্যাগ ও অবদানের মাধ্যমে অর্জিত হয়েছে তাকে অবমাননা করা কোনাে সুস্থ নাগরিকের পক্ষে সম্ভব নয়। দেশের রাজনৈতিক ও ধর্মব্যবসায়ী মহল থেকে গত কয়েকদিনে ভাস্কর্য নিয়ে যেসব উস্কানিমূলক বক্তব্য দেয়া হচ্ছে, কুষ্টিয়ার ঘটনা তারই বহিঃপ্রকাশ বলে আমরা মনে করি।

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক ও অবিচ্ছেদ্য উল্লেখ করে বিবৃতিতে বলা হয়, দেশের প্রতিক্রিয়াশীল যে কোনাে অপশক্তি বাঙালির মন-মানস থেকে কোনাে দিন বঙ্গবন্ধুকে সরাতে পারবে না; তাই তার ভাস্কর্যে আঘাতকে আমরা পুরাে বাংলাদেশের ওপরই আঘাত বলে মনে করি। দেশের বিভিন্নস্থানে ঘাপটি মেরে থাকা সকল অশুভ শক্তির প্রতি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে আমরা বলতে চাই, বঙ্গবন্ধুর প্রতি যেকোনাে অসম্মান ও অবমাননা বাঙালি জাতি কোনাে ক্রমেই সহ্য করবে না; পুরাে জাতি ঐক্যবদ্ধ হয়ে জাতির পিতার মর্যাদাগত সর্বোচ্চ অবস্থান ধরে রাখার জন্য সম্ভাব্য সব পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।