ঘুরে আসুন কুমিল্লা শহরের পুকুর দিঘি জলাশয়ে

20
Social Share

কুমিল্লা শহরে পুকুর-দিঘি ও জলাশয় কমে গেছে। তবুও এ শহরে আসে অতিথি পাখি। শহরের পশ্চিমের চম্পকনগর এলাকার একটি বড় পুকুরে ঝাঁকে ঝাঁকে অতিথি পাখির দেখা মেলে। পাখির কিচিরমিচির শব্দে মুখর হয়ে ওঠে চারপাশ। এসব পাখির অধিকাংশই বালিহাঁস বলে জানিয়েছেন ঐ পুকুরের মালিক গাজী রিয়াজ। এছাড়া অন্য প্রজাতির পাখিও রয়েছে এ পুকুরে। সাধারণত মাছ চাষের জন্য পুকুরটি ব্যবহৃত হলেও এ বছর অতিথি পাখি আসায় মাছও ধরা হয়নি।

রবিবার দুপুরে চম্পকনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সংলগ্ন গাজী রিয়াজের পুকুরে দেখা গেছে, পানিতে ভাসছে শত শত অতিথি পাখি। গাঢ় বাদামি ও হালকা খয়েরি রঙের পাখিগুলোর উড়াউড়ির দৃশ্য দেখলে যে কারো মন জুড়িয়ে যায়। পাখিগুলো যখন আকাশে উড়ে তখন কলকাকলিতে মুখর হয়ে উঠে পুরো এলাকা। একটু শব্দেই পাখিগুলো উড়ে গিয়ে পাশের গাছ-গাছালিতে আশ্রয় নেয়, আবার অনেক পাখি কচুরিপানার ভিড়ে নিজেকে লুকিয়ে খাবার সংগ্রহে ব্যস্ত থাকে।

২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে ট্রেনে যাওয়া যাবে কক্সবাজার

পুকুরের মালিক গাজী রিয়াজ জানান, পুকুর, দিঘি ও জলাশয় ভরাট করে ভবন নির্মাণ করায় আগের মতো আর অতিথি পাখির দেখা মেলে না। তবে গত তিন বছর ধরেই পাখিগুলো এ পুকুরে আসছে। শীতকালে অতিথি পাখি থাকায় পুকুর থেকে মাছ তোলা হয় না। লোকজন যেন তাদের বিরক্ত না করে এ ব্যাপারে এলাকাবাসীও বেশ সতর্ক। এছাড়া কোনো পাখি শিকারি যেন পুকুরের আশপাশে ঘেঁষতে না পারে সেজন্য সিসি ক্যামেরাও লাগানো হয়েছে। প্রতিদিন দূর-দূরান্তের অনেক পাখিপ্রেমী লোকজন পাখিদের মনোমুগ্ধকর দৃশ্য দেখতে এখানে আসেন।