করোনা ভাইরাস: ‘ঢাকার শতকরা ৪৫ ভাগ মানুষ কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন’ – নতুন গবেষণা

Social Share

বাংলাদেশে সরকারের এক নতুন গবেষণা বলছে, ঢাকার বাসিন্দাদের শতকরা ৪৫ ভাগ মানুষের দেহে করোনাভাইরাসের অ্যান্টিবডি পাওয়া গেছে। এর মানে হচ্ছে এরা ইতোমধ্যেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান আইইডিসিআর এবং আন্তর্জাতিক উদরাময় গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ আইসিডিডিআর,বি যৌথভাবে এ গবেষণা পরিচালনা করেছে।

নতুন এই গবেষণা বলছে, কোভিড-১৯ শনাক্ত হওয়া মানুষের মধ্যে ৯৪ শতাংশই ছিলেন লক্ষ্মণ ও উপসর্গহীন।

গবেষণায় ঢাকার ১২,৬৯৯ জন মানুষের নমুনা পরীক্ষা করে দেখা গেছে, তার মধ্যে ৪৫ শতাংশ মানুষের শরীরে করোনাভাইরাসের অ্যান্টিবডি পজিটিভ।

বস্তি এলাকায় এই সংক্রমণের হার প্রায় শতকরা ৭৪ ভাগ।

আক্রান্তদের ২৪ শতাংশের বয়স ৬০ বছরের বেশি। এছাড়া ১৫ থেকে ১৯ বছর বয়সী মানুষের হার ১৮%।

গবেষণায় লক্ষ্মণ ও উপসর্গ নেই এমন ৮১৭ ব্যক্তির দেহের নমুনা পরীক্ষা করে তার মধ্যে ৫২৮ জনই কোভিড-১৯ শনাক্ত পাওয়া যায়।

এছাড়া উপসর্গ ছিলএমন ৫৫৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে তার মধ্যে ৪০০ জনের মধ্যে সংক্রমণ পাওয়া যায়।

সংক্রমণের হার নারীদের মধ্যে কম আগে এমন একটি ধারণা ছিল।

কিন্তু নতুন গবেষণায় দেখা গেছে, যেদিন নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে, সেইদিন সংক্রমণের হারে নারী ও পুরুষের মধ্যে তেমন ফারাক দেখা যায়নি।

গবেষণার জন্য ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের মধ্য থেকে দৈবচয়ন ভিত্তিতে ২৫টি ওয়ার্ড বেছে নেওয়া হয়। এবং প্রতি ওয়ার্ড থেকে একটি মহল্লা বাছাই করা হয়।

এ ছাড়া রাজধানীর আটটি বস্তিকে এ জরিপে যুক্ত করা হয়।

সোমবার ঢাকায় কোভিড-১৯-এর করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি ও জিন রূপান্তর বিষয়ে এক ওয়েবিনারে নতুন গবেষণার তথ্য তুলে ধরা হয়।

করোনাভাইরাসের জিন বিশ্লেষণ করে গবেষকেরা অনুমান করছেন, ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি দেশে প্রথম করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঘটেছিল।

ওয়েবিনারে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা বলেছেন, নতুন তথ্যে দেখা যাচ্ছে কেউই করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশংকা থেকে মুক্ত নয়।

ফলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ছাড়া কোন উপায় নেই।