করোনায় বিপন্ন মানুষের পাশে আওয়ামী লীগ, সহায়তা অব্যাহত

Social Share

করোনায় বিপন্ন মানুষের মধ্যে আওয়ামী লীগের সহায়তা অব্যাহত আছে। করোনার প্রাদুর্ভাব ঠেকাতে দেশব্যাপী চলছে সাধারণ ছুটি। এতে কর্মহীন হয়ে পড়েছে লাখ লাখ মানুষ। শুরু থেকেই কর্মহীন ও দরিদ্র এসব মানুষের জন্য সহায়তার হাত বাড়িয়ে দেয় আওয়ামী লীগ।
জনপ্রতিনিধি ও ব্যক্তিগত পর্যায়ে তাদের বাড়িতে বােিত পৌঁছে দেয়াা হচ্ছে খাদ্যসামগ্রী। একই সঙ্গে খাদ্য সহায়তা পেয়েছেন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকা বিদেশফেরত লোকজনও। এদিকে শহর ও গ্রামের রাস্তায় জীবাণুনাশক স্প্রে এবং সাধারণ মানুষের মধ্যে মাস্ক, সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।
আওয়ামী লীগের ওয়েব সাইটে বিভিন্নস্থানে সহায়তার এই বিবরণ আছে। তা থেকে দেশব্যাপি এই তৎপরতার কিছু তুলে ধরা হলো।
ঢাকার ফার্মগেটে কর্মহীন পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অসাদুজ্জান খান কামাল। কেরানীগঞ্জ উপজেলায় তিন দফায় ৮০ হাজার মানুষের কাছে স্থানীয় নেতাকর্মীদের মাধ্যমে ত্রাণ পৌঁছে দিয়েছেন বিদ্যুৎ, জ্বালানী ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। প্রায় ৫০হাজার পরিবারের প্রতিদিনের খাবারের ব্যবস্থা করছেন তিনি। কেরানিগঞ্জের কোন্ডা ইউনিয়নে তাঁর অনুদান ও সহায়তা ৪ হাজার পরিবারকে পৌছে দেন স্থানীয় ছাত্রলীগ, যুবলীগ এবং আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ।
ঢাকা-১৫ আসনের সাংসদ শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল মজুমদারদার মিরপুরে কয়েক দফায় সাড়ে ৫ হাজার মানুষের কাছে সহায়তা পৌঁছে দিয়েছেন।
সবুজবাগ থানার মাদারটেক এলাকার তিতাস রোডে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের সমন্বয়ে গঠিত একটি টিমের মাধ্যমে দুস্থ ও গরীব মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছেন ঢাকা-৯ আসনের সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী।
৫শ’ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন ঢাকা উত্তর সিটির নব নির্বাচিত মেয়র আতিকুল ইসলাম। মেয়রের উদ্যোগে ৪০ হাজার মানুষের কাছে গোপনে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেয়া হয়েছে। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন কর্মহীন মানুষকে খাদ্য সহায়তা দিতে হটলাইন চালু করেছে।
লালবাগে দিনমজুর ও অসহায় দরিদ্র ৫শ’ পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করছেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ।
ঢাকা-২ আসনে করোনা ভাইরাসের কারণে কর্মহীন প্রায় ৩ হাজার ৫শ’ মানুষকে ত্রাণ দিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য কামরুল ইসলাম। হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স, বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠন, উপসানালয়, ইমাম, গরিব অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অব্যাহত রেখেছে আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ উপকমিটি।
দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের বিভিন্ন এলাকায় ৮ হাজার মানুষের কাছে খাদ্য সহায়তা দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ। দক্ষিণ মনিপুরে অসহায় থেটে খাওয়া মানুষের তালিকা তৈরি করে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ ।
কেরানিগঞ্জ উপজেলার শুভাঢ্যা ইউনিয়নের দেড় হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সাধারন সম্পাদকের পক্ষ থেকে এ পর্যন্ত ৫ হাজার অসহায় পরিবার কে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে।
ওয়ারীর বিভিন্ন এলাকায় কর্মহীন মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে চাল, তেল, আলু ও ডালসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় খদ্যদ্রব্য পৌঁছে দেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। কাকরাইল, বেইলি রোড, ইস্কাটন ও পশ্চিম মালিবাগ এলাকায় নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য বিতরণ করা হয়েছে।
পল্টন ও শান্তি নগর এলাকার নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের কাছে পল্টন থানা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়া হয়েছে। কাফরুলের ইমান নগর, ১৪ ডি, টিনশেড ও গোয়ালবাড়িসহ বিভিন্ন এলাকায় কর্মহীন মানুষের ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন কাফরুল থানা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ।
মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের উদ্যোগেও ত্রাণ বিতরণ করা হয়েছে। স্থানীয় সংসদ সদস্য ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর সহযোগিতায় ৭ থেকে ৮শ’ অসহায় ও দুস্থদের ঘরে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছে তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানা ছাত্রলীগ। কাফরুল থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের উদ্যোগে শেওড়া পাড়ার বৌ বাজারে ৬ হাজার মানুষের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়। কলাবাগান, ঝিকাতলা, বাংলা মটর, মগবাজার, বনশ্রী,কমলাপুর,শাহজাহানপুর, সিপাহী বাগ, ভূইয়াপারা, বাসাবো, মুগদাপাড়া, মানিকনগর, গোড়ান সহ কিছু এলাকাতে ৬শ’ পরিবারে খাদ্য সহায়তা বিতরণ করেছেন মতিঝিল থানা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক।
নারায়নগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য তার এলাকার কর্মহীন মানুষের জন্য প্রায় ১ কোটি টাকার অনুদান দিয়েছেন। ফতুল্লার ৯ হাজার পরিবারের মাঝে খাবার পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। রুপগঞ্জে ১২ হাজার ২ শ দরিদ্র কর্মহীন পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতরা। কাচঁপুরে ২০০ অসহায় গরীব পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করে সোনারগাঁ উপজেলা ছাত্রলীগ।
ঢাকার বাইরে চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার কর্মহীন, অসহায় ১২ হাজার পরিবারকে খাদ্যসহায়তা দিচ্ছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ও চট্টগ্রাম-১ এর সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন।
চট্টগ্রামের রাঙ্গুনিয়ায় তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদের উদ্যোগে ৫০ হাজার পরিবারের মাঝে সরকারি-ব্যক্তিগত ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হচ্ছে।এছাড়াও তার নির্দেশে কৃষকদের ধান কেটে দিয়েছেন ছাত্রলীগ ও কৃষক লীগের নেতা-কর্মীরা।
রাউজানের ১৪ ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভায় প্রায় ৩০ হাজার পরিবারের মধ্যে খাদ্যদ্রব্য ও সাধারণ মানুষের নিরাপত্তার জন্য ২০ হাজার মাস্ক বিতরণ এবং ১১২ জন গ্রাম পুলিশের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন স্থানীয় সাংসদ রেলপথ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি এ বিএম ফজলে করিম চৌধুরী।
চট্রগ্রাম-৩ সন্দ্বীপ আসনের স্থানীয় সংসদ সদস্য মাহফুজুর রহমান মিতার ব্যক্তিগত উদ্যোগে বারো হাজার পরিবারের মাধ্যমে ত্রান বিতরণ করা হয়। সর্বশেষ আরো ৪১৩২ জনের ঘরে ঘরে রাতে গিয়ে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন সন্দ্বীপের এই সংসদ সদস্য।
চট্টগ্রাম মহানগরে ৪১ টি ওয়ার্ডে তালিকাভূক্ত গরীব ও অস্বচ্ছল পরিবারের মাঝে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন ওয়ার্ড কাউন্সিলরের মাধ্যমে সরকারি ত্রাণ-সামগ্রী পৌঁছে দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে ১৯০ টন চাল বিতরণ করা হয়েছে।
চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন এলাকায় কর্মহীন পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী । যারা লোকলজ্জার ভয়ে ত্রাণের কথা বলতে পারেন না, তাদের জন্য ‘জরুরী সেবা নাম্বার’ ০১৩১৮৩২৬০১৬ চালু করেছেন তিনি। নগরীর জিইসি, আগ্রাবাদ ও জামাল খান ওয়ার্ডের দুস্থ ও খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে নিজ হাতে ত্রাণ তুলে দেন শিক্ষা উপমন্ত্রী ।
নগরীর বায়জিদ বোস্তামী এলাকায় আওয়মী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক ব্যারিষ্টার বিপ্লব বড়–য়ার পক্ষে এলাকার বিভিন্ন স্থানে দুস্থ মানুষের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দিচ্ছেন দলীয় নেতা-কর্মীরা। সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় ৩১শ কর্মহীন ও অসহায় মানুষের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেন আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক।
সাতকানিয়ার ৪হাজার পরিবারের কাছে ইফতার সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন।
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের উদ্যোগে জোবরা গ্রামে ৩০০ মানুষের মাঝে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, ৪০০ সুরক্ষাসামগ্রী বিতরণ এবং একজন কৃষকের ধান কেটে দেয়া হয়।
কক্সবাজার জেলার উখিয়া উপজেলার পালংখালী ইউনিয়ন ৫ শ পরিবারে ত্রাণ বিতরণ করেছে স্থানীয় আওয়ামী লীগ। মাতারবাড়ীতে ৩ হাজার ৭০০ জনের মাঝে খাদ্য ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে । রামুর দুর্গম ব্যাঙডেবা গ্রামে সাহায্য পৌঁছে দিচ্ছে জেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের নেতৃত্বে গঠিত মনিটরিং সেল। চিকিৎসা সংকট দূর করতে কক্সবাজারে চালু করা হয়েছে ভ্রাম্যমাণ হাসপাতাল।
নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের পক্ষ থেকে ২ হাজার ২’শ পরিবারের মাঝে খাদ্য ও ইফতার সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। একই ভাবে কবিরহাট উপজেলার দরিদ্র ৪ হাজার পরিবারের মধ্যে ইফতার ও খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।
চাঁদপুর-৩ এর সংসদ সদস্য ও শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনির উদ্যোগে করোনা সংক্রমণ রোধে চাঁদপুর পৌর এলাকায় কর্মরত ১৮০ জন পরিচ্ছন্নতা কর্মীর মাঝে বুট, রাবার গ্লাভস, পোশাক, মাস্ক ও গগলস্ বিতরণ করা হয়েছে। দরিদ্র ২ হাজার পরিবারের মাঝে শিক্ষামন্ত্রীর পক্ষ থেকে খাদ্যসহায়তা বিতরণ করা হয়েছে। চাঁদপুর-২ আসনে কর্মহীন ১ হাজার ৪শ’ পরিবারের মধ্যে খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের তিন উপজেলার দরিদ্র জনগোষ্ঠীর বাড়িতে বাড়িতে খাবার পৌঁছে দিচ্ছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য। পাকুন্দিয়া উপজেলার নয়টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার ২ হাজার অসহায় মানুষের কাছে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে।
কুমিাল্লা-১০ (নাঙ্গলকোট, সদর দক্ষিণ ও লালমাই) আসনে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের ব্যক্তিগত অর্থায়নে দশ হাজার পরিবারকে খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। কুমিল্লা সদর এলাকায় করোনা পরিস্থিতিতে সৃষ্ট সংকট মোকাবেলায় ৯ হাজার পরিবারের কাছে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দিয়েছেন সদর আসনের সংসদ সদস্য।
কুষ্টিয়ায় ১ হাজার পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহবুব উল আলম হানিফ। দৌলতপুর আসনের সংসদ সদস্যের উদ্যোগে দৌলতপুর হাসপাতালের কয়েকজন ডাক্তারের সমন্বয়ে গঠিত একটি ভ্রাম্যমাণ চিকিৎসা টিম ফোন কল পেলেই চলে যাচ্ছেন রোগীদের বাড়িতে ।
খুলনা-৪ আসনের এমপি আব্দুস সালাম মূশের্দীর নিজস্ব অর্থায়নে রূপসা উপজেলার নৈহাটি ইউনিয়নের সকল ওয়ার্ডে দু:স্থ, অসহায় ও গরিব ২৫০ জনের মাঝে ত্রান বিতরন করা হয়। কয়রার মহারাজপুরে ২শ’ কর্মহীনের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন খুলনা-৬ াাসনের সংসদ সদস্য।
করোনায় মৃতের পরিবারসহ লকডাউনে থাকা ৪০ পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দেয়া হয়েছে। এছাড়াও ৩ হাজ্র ৮শ ৫২ জন কর্মহীনের মাঝে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপহার বিতরণ করেছেন খুলনার সিটি মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক।
গাইবান্ধায় জেলার সাঘাটা-ফুলছড়ি উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নে ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বি মিয়ার ব্যক্তিগত অর্থায়নে ৮ হাজার ৫০০ অসহায় হতদরিদ্র পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী ও ৬ হাজার শিশুকে ‘শিশু খাদ্য’ দেয়া হয়েছে।
গাজীপুর সদর উপজেলার ৫০ হাজার পরিবারের কাছে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেন স্থানীয় সংসদ সদস্য ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ হসান রাসেল। গত ৩ মে তিনি আরো ১০ হাজার কর্মহীন অটো ও রিক্সাচালকের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছেন। এপর্যন্ত ৬০ হাজার দুস্থ মানুষকে ত্রাণ সহায়তা দিয়েছেন গাজীপুর সিটি মেয়র জাহিঙ্গির আলম।
গোপালগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য শেখ সেলিম ১৩ হাজার ৫০০ কর্মহীন পরিবারের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন। পৌর এলাকার বিভিন্ন ওয়ার্ডে ১৯ হাজার অসহায় হতদরিদ্র পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন এবং আরো ৬ হাজার মানুষকে সহায়তা দিচ্ছেন সংসদ সদস্যের ছেলে।
জযপুরহাটে গ্রামের দরিদ্র মানুষের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করতে জাতীয় সংসদের হুইপ ও জয়পুরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপনের উদ্যোগে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ তিনটি মেডিক্যাল দল গঠন করে চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে জেলার ৩২টি ইউনিয়নে।
জামালপুরের সরিষাবাড়ির ৪০ হাজার কর্মহীন মানুষের কাছে ত্রাণ সহায়তা পৌঁছে দিয়েছেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান। কর্মহীন ৪শ’ পরিবারের মাঝে নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্য সামগ্রী বিতরণ করেন তিনি।
ঝালকাঠিতে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও সাবেক শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমুর পক্ষ থেকে ২ হাজার পরিবারকে ইফতার সামগ্রী দেয়া হয়েছে।
টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী ও মধুপুর উপজেলায় প্রায় ৩ হাজার পরিবারের হাতে খাদ্যসামগ্রী তুলে দিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক। স্থানীয় প্রশাসনের সাথে সমন্ব করে ২৫ হাজার পরিবারের কাছে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেয়া হয়।
ঠাকুরগাঁওতে ১৩ নং গড়েয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলা, ঠাকুরগাঁও এর উদ্যোগে করোনা ভাইরাসের কারনে ৫০০ জন অসহায়,কর্মহীন ও খেটে খাওয়া মানুষের মাঝে ৫ কেজি চাল,৫০০ গ্রাম ডাল, ৫০০ মিলি সয়াবিন তেল ও ১ টি করে সাবান বিতরন করা হয়।
দিনাজপুরে কর্মহীন ২০ হাজার পরিবার ও অভুক্তদের খাবারের ব্যবস্থা করেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।
এছাড়াও নওগাঁ, নরসিংদী, নড়াইল, নাটোর ,নীলফামারী, নেত্রকোনা,পাবনা ,পটুয়াখালি, পিরোজুর, ফরিদপুর,ফেণী, বগুড়াসহ বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায় আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে ত্রান বিতরণ অব্যহত রয়েছে।