করোনাভাইরাস: কী ভবিষ্যৎ অপেক্ষা করছে বাংলাদেশের সামনে?

ঢাকার সড়কে পথযাত্রীদের থামিয়ে রাস্তায় বের হওয়ার কারণ জিজ্ঞাসা করা হচ্ছে।
Social Share

বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিস্তার বাড়ার সাথে সাথে মৃত্যুর সংখ্যাও যে বাড়তে থাকবে এ নিয়ে বিশেষজ্ঞদের মনে কোন সন্দেহ নেই।

প্রশ্ন হলো সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার বেড়ে শেষ পর্যন্ত কোথায় দাঁড়াবে? এবং কোন পর্যায়ে এসে এই হার কমতে শুরু করবে?

এসম্পর্কিত একটি মডেল রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইন্সটিটিউট – আইইডিসিআর-এর হাতে রয়েছে।

কিন্তু জনমনে আতঙ্ক ছড়াতে পারে সেই বিবেচনায় এই মডেলটি সরকার বর্তমান পরিস্থিতিতে প্রকাশ্যে আনতে চাইছে না।

“এক দিক থেকে ঠিক কাজটিই করা হয়েছে। কারণ এই মুহূর্তে প্রজেকশন (পূর্বাভাস) করার মতো যথেষ্ট ডেটা (উপাত্ত) পাওয়া যাচ্ছে না,” বলছেন ভাইরোলজিস্ট ড. নজরুল ইসলাম।

অধ্যাপক ডা. নজরুল ইসলাম, ভাইরোলজিস্ট

তিনি বলছেন, করোনাভাইরাস রোগীদের কাছ থেকে নমুনা-রস সংগ্রহের কাজে নানা ধরনের সমস্যা রয়েছে।

“একদিন নমুনা সংগ্রহ করে আরেকদিন তা পরীক্ষা করা হচ্ছে। সেই তথ্য প্রকাশ করা হচ্ছে অন্য এক দিন। ফলে এর থেকে এখনই কোন সুনির্দিষ্ট মডেল তৈরি করা কঠিন।”

এর পাশাপাশি মাঠ পর্যায়ে আসা অনেক উপাত্ত ‘সিস্টেম লস’-এর শিকার হচ্ছে বলে ড. ইসলাম সন্দেহ করেন।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এবং সম্ভাব্য মৃত্যুর হার নিয়ে গত ২৬শে মার্চে তৈরি জাতিসংঘের একটি ইন্টার-ডিপার্টমেন্টাল রিপোর্ট বাংলাদেশের গণমাধ্যমে ফাঁস হয়ে যায়।

এতে পূর্বাভাস করা হয়, বাংলাদেশে জনঘনত্বের বিবেচনায় করোনাভাইরাসে পাঁচ লাখ থেকে ২০ লাখ মানুষের জীবনহানি ঘটতে পারে।

বাংলদেশে সংক্রমণের চিত্র। (১৭ই এপ্রিল, ২০১২০)

পূর্বাভাসের সমস্যা

কিন্তু এই পূর্বাভাসে একটি শর্ত ছিল। আর সেটি হলো করোনাভাইরাসের বিস্তার, প্রশমন এবং অবদমনে সরকারের তরফে একেবারেই যদি কোন ধরনের জরুরি পদক্ষেপ নেয়া না হয় তাহলেই শুধুমাত্র এই পরিস্থিতি তৈরির সম্ভাবনা রয়েছে।

বিবিসি বাংলার সাথে আলাপকালে রোগতত্ত্ববিদ ড. এ. এম. জাকির হোসেন বলছিলেন, এই ধরনের পূর্বাভাসের কিছু সমস্যা রয়েছে।

তিনি জানান, সংক্রমণ বিস্তারের কিছু শর্ত রয়েছে। এগুলো হলো: রোগাক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি, সংক্রমণের হার, আরোগ্যের হার, মৃত্যুর হার এবং রোগাক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনায় রয়েছেন এমন জনসংখ্যা।

“চীনের এক হিসেব মতে, করোনাভাইরাসে যারা মারা যাবেন তাদের মধ্যে ৭১% থেকে ৭৯% মারা যাবেন অন্য কোন রোগে, যাকে ‘কো-মরবিডিটি’ বলা হয়। যেমন, হার্টের সমস্যা,” ব্যাখ্যা করছেন তিনি।

“বাংলাদেশের ক্ষেত্রে চীনা হিসেবটিকে ব্যবহার করে আমরা ধরে নিতে পারি করোনাভাইরাসের আক্রান্ত হওয়ার পর যাদের বয়স ৬০ বছর বা তার ঊর্ধ্বে, এমন ৬০ হাজার থেকে ৭০ হাজার মানুষ কোমরবিডিটিতে মৃত্যুবরণ করতে পারেন।”

ড. এ.এম জাকির হোসেন।

ড. হোসেন বলছেন, এটা দেখে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। বাংলাদেশে মৃত্যুহার হচ্ছে প্রতি ১০০০ জনে পাঁচ জন। অর্থাৎ প্রতিবছর নানা কারণে নয় লক্ষ মানুষের মৃত্যু ঘটে থাকে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এক্ষেত্রে একটি চিত্র পাওয়া যাবে সংক্রমণের হার-এর দিকে নজর রাখলে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের বিস্তার যদি ‘এক্সপোনেনশিয়াল’ হয় তাহলে সেটা পরিস্থিতিকে আরও বিপজ্জনক করে তুলবে বলে তারা স্বীকার করছেন।

এক্সপোনেনশিয়াল গ্রোথের একটি চিত্র পাওয়া যায় সেন্টার ফর ইনকুয়ারি-তে প্রকাশিত ভিনোদ ভরদ্বাজের একটি নিবন্ধ থেকে।

এখানে তিনি লিখছেন, যুক্তরাষ্ট্রে ২৬শে মার্চ স্থানীয়ভাবে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা ছিল ১৫। কিন্তু সারা দেশে লকডাউন থাকার পরও পরবর্তী ছয় সপ্তাহের মধ্যে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৪,৬০,০০০।