কমলা হ্যারিসের জীবন কাহিনি

কমলা হ্যারিস
Social Share

কমলা হ্যারিস। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের এবারের নির্বাচনে ভাইস প্রেসিডেন্ট প্রার্থী। এই আলোচিত নারীর জীবনের কিছু কাহিনি নিচে দেয়া হলো।

জন্ম ও পরিবার

কমলার বাবার জন্ম জ্যামাইকায় এবং মা ভারতীয় বংশোদ্ভূত ইন্ডিয়ান আমেরিকান। অর্থনীতিবিদ বাবা ও জীববিজ্ঞানী মায়ের সন্তান কমলার রয়েছে মায়া নামের এক বোন। কমলার জন্ম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ওকল্যান্ডে। কৃষ্ণাঙ্গ সংখ্যাগরিষ্ঠ পাড়ায় দীর্ঘদিন থাকার পাশাপাশি তামিল মা ও জ্যামাইকান বাবার মিশ্র ঐতিহ্যকে সঙ্গে নিয়েই বেড়ে ওঠা তার। কমলার বর্তমান বয়স ৫৫ বছর।

আমেরিকা যখন সিভিল রাইটস আন্দোলনে উত্তাল, তখনই আস্তে আস্তে বড় হন কমলা। বাবা-মা সেই ছোট্ট মেয়েটিকে নিয়ে হাঁটতেন মিছিলে, জড়ো হতেন বিভিন্ন জমায়েতে। কমলা জানাচ্ছেন, তার একেবারে ছোটবেলার ঝাপসা স্মৃতির মধ্যে আছে চারদিকে অসংখ্য পা হেঁটে চলেছে সারিবদ্ধভাবে। আর সেই মিছিল থেকে নানা রকম স্লোগান উঠছে। মা শ্যামলা জানিয়েছিলেন তার বড় মেয়েটি অর্থাৎ কমলার মুখে যখন সবে বুলি ফুটেছে, তখন সে মাঝেমাঝেই কান্নাকাটি করত আর কী চাই জিজ্ঞাসা করলে ঠোঁট ফুলিয়ে আধো আধো গলায় বলত, ‘ফিদম’।

স্কুল লাইফ 

ক্যালিফোর্নিয়ার বার্কলের কৃষ্ণাঙ্গ সংখ্যাগরিষ্ঠ এলাকায় বাস করলেও কমলা পড়তেন অভিজাত থাউজেন্ড ওকস স্কুলে। সেই স্কুলে এক সময় ৯৫ শতাংশ শিক্ষার্থী ছিল শ্বেতাঙ্গ। বর্ণভিত্তিক পৃথকীকরণের নীতি রদ হবার পর এই চিত্র বদলে যায়। কমলা যখন সেই স্কুলে ভর্তি হন, তখন সেখানে মোট শিক্ষার্থীর ৪০ শতাংশ ছিল কৃষ্ণাঙ্গ। কিছুদিন মায়ের সঙ্গে ক্যানাডায় ছিলেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ে 

 কমলা হ্যারিস হাওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান ও অর্থনীতিতে স্নাতক হবার সময়ে নানা ধরনের কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করতেন। ১৯৮৬ সালে স্নাতক হবার পর আইনে স্নাতকোত্তর স্তরে পড়াশোনা করেন তিনি।

পরিবার 

২০১৪ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার আইনজীবী ডগলাস এমহফকে বিয়ে করেন কমলা। ডগলাসের আগের পক্ষের দুই সন্তান রয়েছে, কোল ও এলা, যাদের কমলা হ্যারিসের সঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক সমাবেশেও দেখা যায়।

কমলা হ্যারিস রোজ সকালে ব্যায়াম করেন। ২০১৬-র একটি সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছিলেন, ‘রোজকার রুটিনে দুটি জিনিস আমাকে রাখতেই হবে। এক, ওয়ার্ক আউট। দুই, ঠিকঠাক খাওয়াদাওয়া।’ প্রথমটির মতো দ্বিতীয় বিষয়টি নিয়েও খুবই উৎসাহী কমলা। নিজে রান্না করতে ভালোবাসেন। প্রায়ই সেই সব রান্নাবান্নায় তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসেন স্বামী ডাগ এমহফ। যখন খুবই চাপে থাকেন রান্না করার ফুরসৎটুকুও মেলে না, তখন রিল্যাক্স করার জন্য ঠিক কী করেন কমলা হ্যারিস? বিভিন্ন রেসিপির বই পড়েন। তাতেই মনটা খানিক ঝরঝরে হয়ে ওঠে।

রাজনীতিতে 

২০০৩ সালে প্রথম নারী ও কৃষ্ণাঙ্গ ব্যক্তি হিসাবে ক্যালিফোর্নিয়া অ্যাটর্নি জেনারেল পদে নিযুক্ত হন তিনি। তখন থেকেই ডেমোক্র্যাটিক পার্টির সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা বাড়তে থাকে। পরে ২০১৭ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার জুনিয়ার সেনেটর পদের নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেন ও জয়ী হন।

যেভাবে জনপ্রিয়  

সেনেটর হিসেবে তার ধারালো প্রশ্ন করার ক্ষমতা বারবার আলোচিত হয়েছে সংবাদমাধ্যম ও সোশাল মিডিয়ায়। টানা দুই টার্ম ধরে সফল অ্যাটর্নি জেনারেল হিসাবে তার কাজও আলোচিত হয়েছে এতদিন। শুধু তাই নয়, বিভিন্ন টেলিভিশন অনুষ্ঠানে নিজের মিশ্র ঐতিহ্য বিষয়ে সাবলীল আলাপ তাকে জনসাধারণের কাছে আরও জনপ্রিয় করে তোলে। এছাড়া, সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার তার প্রতি সমর্থনও সাহায্য করেছে বলে মনে করেন অনেকে।

তার কিছু পদক্ষেপ

সিনেটর পদে নির্বাচিত হবার পর কমলা বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ ইস্যুতে সোচ্চার হন। সমকামীদের বিবাহের অধিকারের পক্ষে, মৃত্যুদণ্ডের বিপক্ষে থাকার পাশাপাশি কমলা বিভিন্ন সময়ে পুলিশনীতিতে বদলের দাবি তুলেন। বর্তমান মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বর্ণবাদ ও পুলিশের অনৈতিকতা যেভাবে আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে আলোচনায় উঠে আসছে, সেই পরিপ্রেক্ষিতে কমলা হ্যারিসের নির্বাচনী অংশগ্রহণ যথাযথ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

যে কারণে আলোচিত 

গত ১১ আগস্ট দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট প্রার্থী জো বাইডেন কমলা হ্যারিসকে তার নির্বাচনী জুটি হিসাবে বেছে নেন। কমলা  প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ নারী এবং প্রথম এশিয়ান আমেরিকান, যাকে নির্বাচনী জুটি হিসেবে বাছলেন দেশটির কোনো প্রেসিডেন্ট প্রার্থী। বাইডেন জিতলে  ইতিহাস গড়বেন কমলা। প্রথম নারী, প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ ও প্রথম এশিয়ান আমেরিকান হিসেবে তিনি হবেন দেশটির ভাইস প্রেসিডেন্ট। কমলা হ্যারিসের হোয়াইট হাউসের উদ্দেশ্যে যাত্রাকে অনেকেই দেখছেন মার্কিন রাজনীতিতে একটি ঐতিহাসিক মোড় হিসেবে। আমেরিকায় সর্বোচ্চ পদগুলোতে কৃষ্ণাঙ্গ ও অন্য বর্ণের নারীদের প্রতিনিধিত্ব বাড়াতে উদ্বুদ্ধ করবে হ্যারিসের মনোনয়ন। বিশেষ করে, ভারতীয় বংশোদ্ভূত আমেরিকানদের মধ্যে কমলার অংশগ্রহণ নিয়ে বিশেষ আগ্রহ দেখা যাচ্ছে।

২০১২-এ ডেমোক্র্যাটদের ন্যাশনাল কনভেনশনে প্রাইম টাইম বক্তা ছিলেন কমলা। সেই প্রথম পুরো বিশ্ব নড়েচড়ে বসে, জানতে চায় কে এই নারী। পরের বছর প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা কমলাকে ‘ব্রিলিয়ান্ট’, ‘ডেডিকেটেড’ এবং ‘টাফ’ বলার পাশাপাশি একটু লঘু চালে এমনই একটি কথা বলে বসেন যার জন্য পরে তাকে ক্ষমাও চাইতে হয়েছিল। কমলার সম্পর্কে ওবামার সেই মন্তব্যটি ছিল, ‘বাই ফার, দ্য বেস্ট লুকিং অ্যাটর্নি জেনারেল ইন দ্য কান্ট্রি’।