এপ্রিলে সীমান্তে এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করবে ভারত

হিন্দুস্তান টাইমস

71
সীমান্তে
Social Share

চলতি বছরের এপ্রিলের মধ্যে রুশ নির্মিত আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এস-৪০০ সীমান্তে মোতায়েন করবে ভারত।

রাশিয়া থেকে পাঁচটি এস-৪০০ আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনছে ভারত। চলতি বছরের মধ্যেই সব ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থাই সীমান্তে মোতায়েনের পরিকল্পনা রয়েছে নয়াদিল্লির। এ বিষয়ে আর কিছু জানায়নি ভারত সরকার।

রাশিয়ার কাছ থেকে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাটির ৫টি ইউনিট কিনতে মোট ৫৪৩ কোটি মার্কিন ডলারের চুক্তি করে ভারত। রাশিয়া ইতোমধ্যে ভারতকে এ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা সরবরাহ করতে শুরু করেছে। আকাশ ও সমুদ্রপথে এগুলো ভারতে পৌঁছাচ্ছে। এ বছরের মধ্যেই রাশিয়া চুক্তি অনুযায়ী সব ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহের কাজ শেষ করতে পারবে বলে নয়াদিল্লি আশা করছে।

মূলত চীন ও পাকিস্তানের দিক থেকে আগত কোনো রকম হুমকি প্রতিরোধে সক্ষম হবে এই মিসাইল। তবে আপাতত চীনের হুমকির কথা মাথায় রেখে চীনের দিকে তাক করেই মোতায়েন করা হবে এস-৪০০ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। তবে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয়তা বুঝে পাকিস্তানের দিকে তাক করেও প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করা হতে পারে। রাশিয়ার তৈরি এই মিসাইল ভূপৃষ্ঠ থেকে আকাশে দূরপাল্লার আঘাত হানতে সক্ষম। 

২০১৫ সালে এই প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার জন্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। পরে ২০১৮ সালে চুক্তিটি চূড়ান্ত করা হয়।

………………………………………………………………………………………………………….

চলতি বছরের এপ্রিলের মধ্যে রুশ নির্মিত আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এস-৪০০ সীমান্তে মোতায়েন করবে ভারত।

রাশিয়া থেকে পাঁচটি এস-৪০০ আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কিনছে ভারত। চলতি বছরের মধ্যেই সব ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থাই সীমান্তে মোতায়েনের পরিকল্পনা রয়েছে নয়াদিল্লির। এ বিষয়ে আর কিছু জানায়নি ভারত সরকার।

রাশিয়ার কাছ থেকে আকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থাটির ৫টি ইউনিট কিনতে মোট ৫৪৩ কোটি মার্কিন ডলারের চুক্তি করে ভারত। রাশিয়া ইতোমধ্যে ভারতকে এ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা সরবরাহ করতে শুরু করেছে। আকাশ ও সমুদ্রপথে এগুলো ভারতে পৌঁছাচ্ছে। এ বছরের মধ্যেই রাশিয়া চুক্তি অনুযায়ী সব ক্ষেপণাস্ত্র সরবরাহের কাজ শেষ করতে পারবে বলে নয়াদিল্লি আশা করছে।

মূলত চীন ও পাকিস্তানের দিক থেকে আগত কোনো রকম হুমকি প্রতিরোধে সক্ষম হবে এই মিসাইল। তবে আপাতত চীনের হুমকির কথা মাথায় রেখে চীনের দিকে তাক করেই মোতায়েন করা হবে এস-৪০০ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা। তবে পরবর্তীতে প্রয়োজনীয়তা বুঝে পাকিস্তানের দিকে তাক করেও প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা মোতায়েন করা হতে পারে। রাশিয়ার তৈরি এই মিসাইল ভূপৃষ্ঠ থেকে আকাশে দূরপাল্লার আঘাত হানতে সক্ষম। 

২০১৫ সালে এই প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা কেনার জন্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছিল। পরে ২০১৮ সালে চুক্তিটি চূড়ান্ত করা হয়।