এত হইচই করার কী আছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

87
Social Share

মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনী দিবসের অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রতিরক্ষা অ্যাটাশ কেন অংশগ্রহণ করেছিল তার ব্যাখ্যা দিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, এটা নিয়মিত অনুষ্ঠান ছিল। সাধারণত যেসব দেশে আমাদের ডিফেন্স অ্যাটাশে থাকেন তারা এসব অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন। এটা নিয়ে এত হইচই করার করার কী আছে।

গতকাল বুধবার (৩১ মার্চ) ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপনে আমাদের ডিফেন্স অ্যাটাশে অংশগ্রহণ করেছেন। গত শনিবার মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী দেশটির সশস্ত্র বাহিনী দিবস উদযাপনে নেইপিদোতে বার্ষিক কুচকাওয়াজ আয়োজন করে। ওই কুচকাওয়াজে মাত্র আটটি দেশ অংশগ্রহণ করে, এর মধ্যে বাংলাদেশ একটি। দেশটির সেনাবাহিনী ক্ষমতা দখল করায় এবার মিয়ানমারের সশস্ত্র বাহিনী দিবসের রাষ্ট্রীয় কুচকাওয়াজে প্রতিনিধি পাঠায়নি অনেক দেশ। তবে রাশিয়া, চীন, ভারত, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, ভিয়েতনাম, লাওস ও থাইল্যান্ড অনুষ্ঠানে যোগ দেয়। এতে আন্তর্জাতিকভাবে বিভিন্ন মহল থেকে সমালোচনা ওঠে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্য দেশের সমালোচনাকারীদের উদ্দেশ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আপনারা এটার সমালোচনা করছেন, হইচই করছেন। অথচ যখন রোহিঙ্গাদের ওপর অমানবিক নির্যাতন চালানো হলো, তখন আপনারা কিছুই করেননি। উল্টো আপনারা মিয়ানমারে আপনাদের ব্যবসা চালিয়ে গেছেন। আপনারা যারা এখন বড় বড় কথা বলছেন বা বেশি সোচ্চার তাদের ব্যবসা তো আগের চেয়ে ১৫ গুণ বেড়েছে।

ড. মোমেন বলেন, আপনারা চাইছেন সু চিকে আবার সরকারে নিয়ে আসার জন্য। আমরা সু চি সরকারের অবস্থান দেখেছি। একটা সময়ে আমরাও সু চির জন্য রাস্তায় মিছিল করেছি। কিন্তু ওই সু চি যখন ক্ষমতায় আসলেন, তখন সেখানে মানবাধিকার লঙ্ঘিত হলো, কিন্তু তিনি কোনো পদক্ষেপ নেননি। আপনারা যারা সমালোচনা করছেন তাদেরও টনক নড়েনি।