একনেকে ৫ হাজার ৮২৫ কোটি ৭৪ লাখ টাকার ১১ প্রকল্প অনুমোদন

56
একনেকে ৫
Social Share

একনেকে ৫ হাজার ৮২৫ কোটি ৭৪ লাখ টাকার ১১ প্রকল্প অনুমোদন। শেখ কামাল আইটি ট্রেনিংসহ ১১ প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক)। এগুলো বাস্তবায়নে মোট ব্যয় ধরা হয়েছে পাঁচ হাজার ৮২৫ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে তিন হাজার ৯৬৩ কোটি ৩৮ লাখ টাকা, বাস্তবায়নকারী সংস্থা থেকে এক হাজার ২২০ কোটি ৪৬ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক ঋণ সহায়তা থেকে ৬৪১ কোটি ৯০ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলানগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এই অনুমোদন দেওয়া হয়।

গণভবন থেকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনাসচিব প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী, ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য মামুন-আল-রশীদ, তথ্য ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন এবং পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য মোসাম্মৎ নাসিমা বেগম প্রমুখ।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, নতুন রাস্তা না করে বিদ্যমান রাস্তাগুলো সংস্কারের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, পৃথিবীতে জনসংখ্যার ঘনত্ব বিবেচনায় বাংলাদেশে অনেক রাস্তা আছে। এখন সেগুলো প্রশস্ত, সংস্কার ও শক্তিশালী করতে হবে। এ ছাড়া তথ্য ও প্রযুক্তি ক্ষেত্রে জনগণকে আরো বেশি সচেতন করতে হবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী আরো বলেন, এ পর্যন্ত ৩৯টি হাই-টেক আইটি পার্ক স্থাপনের কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে সাতটি স্থানে সফটওয়্যার টেকনোলজি ,আইটি বিজনেস, ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপনের কাজ সমাপ্ত হয়েছে।

…………………………………………………………………………………………

একনেকে ৫ হাজার ৮২৫ কোটি ৭৪ লাখ টাকার ১১ প্রকল্প অনুমোদন এ উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনাসচিব প্রদীপ রঞ্জন চক্রবর্তী, ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য মামুন-আল-রশীদ, তথ্য ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন এবং পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য মোসাম্মৎ নাসিমা বেগম প্রমুখ।

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, নতুন রাস্তা না করে বিদ্যমান রাস্তাগুলো সংস্কারের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, পৃথিবীতে জনসংখ্যার ঘনত্ব বিবেচনায় বাংলাদেশে অনেক রাস্তা আছে। এখন সেগুলো প্রশস্ত, সংস্কার ও শক্তিশালী করতে হবে। এ ছাড়া তথ্য ও প্রযুক্তি ক্ষেত্রে জনগণকে আরো বেশি সচেতন করতে হবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী আরো বলেন, এ পর্যন্ত ৩৯টি হাই-টেক আইটি পার্ক স্থাপনের কার্যক্রম হাতে নেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে সাতটি স্থানে সফটওয়্যার টেকনোলজি ,আইটি বিজনেস, ট্রেনিং অ্যান্ড ইনকিউবেশন সেন্টার স্থাপনের কাজ সমাপ্ত হয়েছে।