একক নামে কেনা যাবে ৫০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র

‘সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ বাড়াতে বিভিন্ন কর্মসূচি নিচ্ছে সরকার। জনগণের যা সুবিধা তা-ই গ্রহণ করা হবে। আর এ খাতে যেন কোনো দুর্নীতি না হয় সে জন্য কঠোর দৃষ্টি রাখা হবে।’

গতকাল শনিবার জাতীয় সঞ্চয় সপ্তাহের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম। তিনি আরো বলেন, মুজিববর্ষ উদ্‌যাপন উপলক্ষে এবার সঞ্চয় সপ্তাহ নতুন মাত্রা পেল।

এবারের সঞ্চয় সপ্তাহের প্রতিপাদ্য বিষয় হলো ‘অপচয় না করে সঞ্চয় কর, সমাজ দেশকে সমৃদ্ধ কর’। উদ্বোধনের পর প্রধান অতিথির নেতৃত্বে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়।

শোভাযাত্রা শেষে সঞ্চয় অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শামসুন্নাহার বেগম সাংবাদিকদের বলেন, ‘সঞ্চয়পত্র কিনতে গিয়ে কেউ যেন হয়রানির শিকার না হয়, সেদিকে নজর দেওয়া হয়েছে। হয়রানি কমাতে সঞ্চয়পত্র কেনা, মুনাফা নেওয়া, এই বিষয়গুলো অটোমেশনের আওতায় আনা হচ্ছে। একক নামে ৫০ লাখ টাকা এবং যৌথ নামে এক কোটি টাকা পর্যন্ত সঞ্চয়পত্র কেনার সুযোগ রাখা হয়েছে। আগে এটি কম ছিল।’

তিনি বলেন, ‘সঞ্চয়পত্র বিক্রি, মুনাফা সংগ্রহ, নমিনির কাছে হস্তান্তর—এসব প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা আনতে জাতীয় পরিচয়পত্র, টিআইএনসহ অন্যান্য কাগজপত্র বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।’

এবারের সঞ্চয় সপ্তাহে সঞ্চয়পত্র কেনায় উৎসাহিত করতে বিভিন্ন প্রচারণামূলক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে উঠান বৈঠক। এ ছাড়া বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে গিয়ে কর্মরতদের সঞ্চয়পত্র কিনতে উৎসাহিত করা হবে।

২০১৯-২০ অর্থবছরে সঞ্চয়পত্র কেনার নিট লক্ষ্যমাত্রা ২৭ হাজার কোটি টাকা। এর মধ্যে নভেম্বর পর্যন্ত নিট অর্জন ২২ শতাংশ। এ সময়ে মোট সঞ্চয়পত্র ইস্যু হয়েছে ২৮ হাজার ৮৬৩ কোটি টাকার। সর্বাধিক বিক্রীত স্কিম পরিবার সঞ্চয়পত্র।