ইরান-আমেরিকা: বিমান ভূপাতিত করা নিয়ে ‘মিথ্যে’ বলায় ইরানে বিক্ষোভ

Social Share

ইরান-আমেরিকা: বিমান ভূপাতিত করা নিয়ে ‘মিথ্যে’ বলায় ইরানে বিক্ষোভ

ভিনিউজ –

ইরানের রাজধানী তেহরানে কয়েকশ বিক্ষোভকারী রাস্তায় নেমে ক্ষোভ প্রকাশ করছে। ইউক্রেনের একটি যাত্রীবাহী বিমান, ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ে ভূপাতিত করার বিষয়টি অস্বীকার করার কারণে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের মিথ্যাবাদী বলে অভিহিত করেছে তারা।

অন্তত দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে এই বিক্ষোভ হয়েছে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক টুইট বার্তার মাধ্যমে এই “অনুপ্রেরণামূলক” বিক্ষোভের প্রতি তার সমর্থন জানিয়েছেন।

শনিবার, অর্থাৎ দুর্ঘটনার তিনদিন পরে ইরান এই বিমানটিকে “অনিচ্ছাকৃতভাবে” ভূপাতিত করার বিষয়টি স্বীকার করে। ওই দুর্ঘটনায় বিমাটিতে থাকা ১৭৬জন আরোহী ও ক্রুর সবাই নিহত হয়।

ইউক্রেন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট পিএস-৭৫২ বুধবার কিয়েভ যাওয়ার উদ্দেশ্যে তেহরানের ইমাম খোমেনি বিমানবন্দর থেকে যাত্রা শুরু করে। এর কিছুক্ষণ পরই বিমানটি বিধ্বস্ত হয়।

ইরাকের মার্কিন বিমান ঘাঁটিতে ইরান ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করার মাত্র কয়েক ঘণ্টা পরে ওই বিমানটি ভূপাতিত করা হয়।

৩রা জানুয়ারি বাগদাদে মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরানি কমান্ডার কাসেম সোলেইমানিকে হত্যার প্রতিক্রিয়ায় এই হামলা চালায় ইরান।

বেশ কয়েকজন ইরানি এবং ক্যানাডিয়ানের পাশাপাশি ইউক্রেন, যুক্তরাজ্য, আফগানিস্তান এবং জার্মানি থেকে আসা নাগরিকরা বিধ্বস্ত হয়ে যাওয়া বিমানটিতে ছিলেন।

তেহরান থেকে উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরেই বিমানটি ভূ-পাতিত হয়।
বিক্ষোভ সমাবেশে কি হয়েছে?
শিক্ষার্থীরা শরীফ ও আমির কবির নামে অন্তত দুটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে জড়ো হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে।

প্রথমে তারা দুর্ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে সেখানে জড়ো হয়। কিন্তু সন্ধ্যা নাগাদ তা বিক্ষোভে রূপ নেয়।

আধা-সরকারি ফার্স নিউজ এজেন্সি এই উত্তেজনায় পরিস্থিতি নিয়ে একটি প্রতিবেদন করতে গিয়ে কিছু বিরল তথ্য দিয়েছে। সংস্থাটি জানায় যে, এক হাজারের বেশি মানুষ দেশটির নেতাদের বিরুদ্ধে স্লোগান দিয়েছে এবং সোলেইমানির ছবি ছিঁড়েছে।

শিক্ষার্থীরা বিমানটি ভূপাতিত করার জন্য দায়ী ব্যক্তিদের, এবং যারা এই ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেছিল, তাদের বিরুদ্ধে মামলা করার আহ্বান জানিয়েছে।

প্রতিবাদী স্লোগানের মধ্যে ছিল “কমান্ডার-ইন-চিফ পদত্যাগ করুন”। এখানে তারা শীর্ষ নেতা আলি খামেনিকে উদ্দেশ্য করে স্লোগানটি দিয়েছে।

এছাড়া “মিথ্যাবাদীদের মৃত্যুদণ্ড দাও” বলেও তারা স্লোগান দেয়।

ফার্স জানিয়েছে যে, পুলিশ বিক্ষোভকারীদের “ছত্রভঙ্গ” করে দেয়। বিশেষ করে, যারা রাস্তা অবরোধ করে ছিল।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায় যে, বিক্ষোভে টিয়ার গ্যাস ছোড়া হচ্ছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীরাও সরকারের এই পদক্ষেপে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

এক ব্যক্তি টুইটারে লিখেছেন: “আমি আমার দেশের কর্তৃপক্ষ, ঘটনাস্থলে থাকা এবং মিথ্যাবাদী লোক

বিবিসি বাংলা