আফগানিস্তান ইস্যুতে সাত দেশের বৈঠক ডেকেছে ভারত, যাবে না চীন-পাকিস্তান

108
আফগানিস্তান
Social Share

মার্কিন সমর্থিত সরকারের পতন এবং তালেবানি দখলের পর প্রতিবেশী দেশ আফগানিস্তান এর পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে ভারত বুধবার রাশিয়া, ইরান এবং মধ্য এশিয়ার পাঁচটি দেশের জ্যেষ্ঠ নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে।

ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল ইরান, কাজাখস্তান, কিরগিজ প্রজাতন্ত্র, রাশিয়া, তাজিকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান এবং উজবেকিস্তানের নিরাপত্তাপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানান।

আফগান প্রতিনিধিদের এ আলোচনায় আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। ওদিকে পাকিস্তান ও চীন এতে যোগ দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। গত সপ্তাহে পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ময়িদ ইউসুফ ভারতকে আফগানিস্তানে ‘শান্তি বিনষ্টকারী’ বলে অভিহিত করেন।

বৈঠকের আগে দোভাল বলেন, এটি আমাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ আলোচনার সময়। তিনি বলেন, তিনি আশা করেন যে আলোচনা আফগানিস্তানের জনগণকে সাহায্য করবে এবং এ অঞ্চলের সম্মিলিত নিরাপত্তা বাড়াবে।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলে, বৈঠকটি ‘প্রাসঙ্গিক নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবে এবং শান্তি, নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা বিষয়ে আফগানিস্তানের জনগণকে সমর্থন করবে।’ বৈঠকে যোগ দিতে পাকিস্তানের অস্বীকৃতি ‘দুর্ভাগ্যজনক, কিন্তু আশ্চর্যজনক নয়’ বলেও মন্তব্য করা হয়।

মার্কিন সমর্থিত সরকারের পতন এবং তালেবানি দখলের পর প্রতিবেশী দেশ আফগানিস্তানের পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করতে ভারত বুধবার রাশিয়া, ইরান এবং মধ্য এশিয়ার পাঁচটি দেশের জ্যেষ্ঠ নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে।

ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল ইরান, কাজাখস্তান, কিরগিজ প্রজাতন্ত্র, রাশিয়া, তাজিকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান এবং উজবেকিস্তানের নিরাপত্তাপ্রধানদের আমন্ত্রণ জানান।

আফগান প্রতিনিধিদের এ আলোচনায় আমন্ত্রণ জানানো হয়নি। ওদিকে পাকিস্তান ও চীন এতে যোগ দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে। গত সপ্তাহে পাকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ময়িদ ইউসুফ ভারতকে আফগানিস্তানে ‘শান্তি বিনষ্টকারী’ বলে অভিহিত করেন।

বৈঠকের আগে দোভাল বলেন, এটি আমাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ আলোচনার সময়। তিনি বলেন, তিনি আশা করেন যে আলোচনা আফগানিস্তানের জনগণকে সাহায্য করবে এবং এ অঞ্চলের সম্মিলিত নিরাপত্তা বাড়াবে।

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলে, বৈঠকটি ‘প্রাসঙ্গিক নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবে এবং শান্তি, নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা বিষয়ে আফগানিস্তানের জনগণকে সমর্থন করবে।’ বৈঠকে যোগ দিতে পাকিস্তানের অস্বীকৃতি ‘দুর্ভাগ্যজনক, কিন্তু আশ্চর্যজনক নয়’ বলেও মন্তব্য করা হয়।

বৈঠকের আগে দোভাল বলেন, এটি আমাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ আলোচনার সময়। তিনি বলেন, তিনি আশা করেন যে আলোচনা আফগানিস্তানের জনগণকে সাহায্য করবে এবং এ অঞ্চলের সম্মিলিত নিরাপত্তা বাড়াবে

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলে, বৈঠকটি ‘প্রাসঙ্গিক নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করবে এবং শান্তি, নিরাপত্তা ও স্থিতিশীলতা বিষয়ে আফগানিস্তানের জনগণকে সমর্থন করবে।’ বৈঠকে যোগ দিতে পাকিস্তানের অস্বীকৃতি ‘দুর্ভাগ্যজনক, কিন্তু আশ্চর্যজনক নয়’ বলেও মন্তব্য করা হয়।