আজ থেকে আবার ব্যাট- বল হাতে নেবেন মাশরাফিরা

ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের আগে লম্বা বিরতি থাকায় বেশ কয়েক দিন ছুটিয়ে কাটিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। ছুটি শেষে আজ থেকে শুরু হবে অনুশীলন।
ছুটি মানে ছুটি। ঘুরে বেড়াও, ঘুমাও, পছন্দের জায়গায় খেতে যাও। যার যা ইচ্ছা কর। গত পাঁচ দিন তাই ব্যাট-বলের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক ছিল না বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের। ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের জন্য প্রস্তুতি শুরু হবে আজ থেকে।

লম্বা সফরের মধ্যে এমনিতেও এ রকম একটা বিশ্রাম দরকার ছিল ক্রিকেটারদের। তার ওপর বার্মিংহামে এই কয় দিন চাইলেও অনুশীলনের জন্য মাঠ পাওয়াটা কঠিন ছিল। অন্য দলের খেলা ছিল বলে মাঠ-নেট ছিল তাদের দখলে। আজ ভারত-ইংল্যান্ড ম্যাচের পর ২ জুলাই বাংলাদেশ-ভারত ম্যাচ দিয়ে আপাতত শেষ হবে বার্মিংহামের বিশ্বকাপ। এরপর বিশ্বকাপের দ্বিতীয় সেমিফাইনালটাও হবে এজবাস্টনেই।

ছুটির শেষ দিনে টিম হোটেল হায়াৎ রিজেন্সির সামনে মোসাদ্দেক হোসেন কথা বলছিলেন সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে, ‘যেভাবে আমরা ম্যাচ খেলছিলাম, এত বড় টুর্নামেন্টে একটা বিরতিও দরকার ছিল। সবাই ছুটিটা ভালোভাবে কাটিয়ে হোটেলে ফিরেছে। কাল (আজ) থেকে আবার আমরা অনুশীলন শুরু করব।’

ভারতকে শক্ত প্রতিপক্ষ মেনেও আশাবাদী মোসাদ্দেক। টুর্নামেন্টের শুরু থেকে বাংলাদেশ দল যেভাবে খেলে আসছে, সেই ধারাবাহিকতা রাখতে পারলে ভারতকে হারানো অসম্ভব মনে হয় না জাতীয় দলের এই ক্রিকেটারের কাছে, ‘আমরা টুর্নামেন্টের এমন একটা জায়গায় আছি, আমি মনে করি না ভারত বা কোনো দলকে নিয়ে ভাবার সময় আছে। আমরা যেভাবে খেলছি, সেভাবে খেলতে পারলে আশা করি ভালো কিছু হবে।’

এজবাস্টনের উইকেট বিশ্বকাপের অন্য উইকেটগুলোর তুলনায় বেশি ব্যাটিং সহায়ক হবে বলে ধারণা মোসাদ্দেকের। যে জায়গায় ব্যাট করেন, ও রকম উইকেট হলে আবারও হয়তো দেখাতে চাইবেন আয়ারল্যান্ডের ত্রিদেশীয় সিরিজে তোলা ঝড়ের মতো কিছু। ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২৭ বলে অপরাজিত ৫২ রানের ম্যাচ জেতানো ইনিংস এসেছিল মোসাদ্দেকের ব্যাট থেকে। সে রকম সুযোগ এলে এবারও ভালো কিছুর আশায় তিনি, ‘এখানে আসার আগে তৈরি হচ্ছিলাম, যেন সুযোগ পেলে ভালো কিছু করতে পারি। আমি যা পারি সেটাই করছি, এর বেশি কিছু নয়। সামনেও একই চেষ্টা করব।’

বার্মিংহামে বাংলাদেশ ও ভারত আছে একই হোটেলে। কাল পর্যন্ত দুই দলের খেলোয়াড়দের দেখা-সাক্ষাতে সৌজন্য বিনিময় আর টুকটাক আড্ডাই বেশি হয়েছে। কিন্তু আজকের পরই তো ভারতের সামনে ইংল্যান্ডের জায়গায় চলে আসবে বাংলাদেশ! হায়াত রিজেন্সির পরিবেশটাও কি হয়ে উঠবে একটু গুমোট?