আগুন জ্বলছে সুন্দরবনে, তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন

49
Social Share

মাসুম হাওলাদার, বাগেরহাট: সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বাগেরহাটের  শরণখোলা রেঞ্জের দাসের ভারানি এলাকায় লাগা আগুন ৮ ঘণ্টায়ও নিয়ন্ত্রণে আসেনি। আগুন ছড়িয়ে পড়ছে বনের সমতল ভূমিতে। সন্ধ্যার পর বন বিভাগ ও ফায়ার সার্ভিস নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে।  আগুন নেভাতে আগামীকাল মঙ্গলবার (৪ মে) সকালে আবারও অভিযান শুরু করবে ফায়ার সার্ভিস ও বন বিভাগ। তবে আগুন নিয়ন্ত্রণ নিয়ে বন বিভাগ ও ফায়ার সার্ভিসের আলাদা বক্তব্য পাওয়া গেছে। এদিকে আগুনের লাগার কারণ উদঘাটনে সোমবার (৩ মে) সন্ধ্যায় তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বন বিভাগ। সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের শরণখেলা রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক জয়নাল আবেদীনকে প্রধান করে এই কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন-শরণখেলা স্টেশন কর্মকর্তা আব্দুল মান্নান ও ধানসাগর স্টেশন কর্মকর্তা মো. ফরিদুল ইসলাম। তদন্ত কমিটিকে আগামী সাত দিনের মধ্যে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। সুন্দরবন পূর্ব বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএফও) মোহাম্মাদ বেলায়েত হোসেন বলেন, ‘সুন্দরবনের মধ্যে আগুন নিয়ন্ত্রনে রয়েছে। সেখানে কিছু লতাপাতা পুড়েছে। বড় ধরনের ক্ষতি হয়নি। রাতের কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম স্থগিত করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে পুনরায় আগুন পুরোপুরি নেভানোর কাজে বন কর্মী ও ফায়ার সার্ভিস অংশ নেবে। কী কারণে আগুন লেগেছে, তার জন্য তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেশন, বাগেরহাটের উপসহকারী পরিচালক মো. গোলাম সরোয়ার বলেন, ‘লোকালয় থেকে ৬ থেকে ৭ কিলোমিটার দূরে বনের মধ্যে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। ফলে আগুন নেভানোর জন্য আমাদের বেগ পেতে হচ্ছে। শুষ্ক মৌসুমে গাছের পাতার স্তুপ থাকায় আগুন একজায়গায় নেই। আগুন খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে সমতল ভূমির বিভিন্ন স্থানে। যেখানে আগুন লেগেছে, সেখানে আশেপাশে কোনো পানির উৎসও নেই।’তিনি আরও বলেন, ‘আগুন নিয়ন্ত্রণে পানি দেওয়ার জন্য আমরা সাড়ে চার কিলোমিটার পাইপ বসিয়েছি। রাত হওয়ার কারণে আমরা কার্যক্রম স্থগিত করেছি। মঙ্গলবার ভোর থেকে আমাদের তিনটি ইউনিট আবারও কাজ শুরু করবে। আশা করি মঙ্গলবার পুরোপুরি আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে।#