আওয়ামী লীগ কাদা-গ্লানিতে পরিপূর্ণ, তাই এ শুদ্ধি অভিযান

আওয়ামী লীগের সমালোচনা করে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আওয়ামী লীগ কাদা-গ্লানি দিয়ে পরিপূর্ণ হয়ে গেছে, তাই এখন নিজেদের শুদ্ধ করছে। আর এই শুদ্ধি অভিযানের মাধ্যমে প্রমাণ হলো তারা নিজেরা শুদ্ধ নয়।

আজ সোমবার দুপুরে তার নিজ জেলা ঠাকুরগাঁওয়ে কালিবাড়ি মির্জা রুহুল আমিন পৌর মিলনায়তনে জাতীয়তাবাদী কৃষকদল ঠাকুরগাঁও জেলা শাখার ত্রিবার্ষিক সন্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না বলেই স্বাধীনতার পঞ্চাশ বছর পরও মানুষের অধিকার, সুশাসন ও সুন্দর সমাজ প্রতিষ্ঠিত হয়নি। তাই জনগণের ভোটকে যারা ভয় পায়, মানুষকে ভোট দিতে দেয় না, জোড় করে ক্ষমতায় আসে তাদের কথা শুনলে হাসি পায়। আওয়ামী লীগ জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। তাদের আর জনগণের প্রয়োজন নেই বলেই পুলিশই এখন দেশ চালাচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, একদলীয় শাসন ব্যবস্থায় কখনো মানুষের মুক্তি আসতে পারে না। একদলীয় শাসন ব্যবস্থা কায়েম করে আওয়ামী লীগ এই সমাজকে পিছিয়ে দিয়েছে। যারা প্রকাশ্যে ভোট চুরি করে তারাই সবচেয়ে বড় চোর। বাংলাদেশের ব্যাংকগুলো থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটপাট ও পাচার করা হচ্ছে, শেয়ার বাজার ধ্বংস করে দেশের অর্থনীতিকে ধ্বংস করে ফেলা হচ্ছে। অথচ এসবের সাথে যারা জড়িত তাদের নাম প্রকাশ করছে না সরকার। সরকার শুধু উন্নয়নের কথা বলে সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভারত সফর সম্পর্কে ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ ভারতের সাথে সুন্দর সম্পর্কের কথা বললেও এখন পর্যন্ত তিস্তার পানি বণ্টন ও সীমান্তে মানুষ হত্যা বন্ধ করতে পারেনি।

তিনি বলেন, প্রতিহিংসা ও রাজনীতি থেকে দূর করে দেওয়ার জন্য আওয়ামী লীগ বেগম খালেদা জিয়াকে অমানবিকভাবে জেলে আটক করে রেখেছে। এই দু:সময়ের মধ্যেও গণতন্ত্রকে উদ্ধারের জন্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তিকে ছিনিয়ে আনার জন্য প্রস্তুত হতে হবে। জনগণের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলোনের কাছে সব শক্তিই পরাজিত হবে। তাই অধিকার ও মুক্তি ফিরে পেতে হলে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রুখে দাড়াতে হবে। সেই সাথে আন্দোলনের মাধ্যমে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিতে সরকারকে বাধ্য করতে হবে।

সম্মেলনে জেলা কৃষক দলের সভাপতি আনোয়ারুল হকের সভাপতিত্বে প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় কৃষক দলের সদস্য সচিব হাসান জাফির তুহিন। অন্যান্যের মধ্যে জেলা বিএনপির সভাপতি তৈমুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক মির্জা ফয়সল আমিনসহ জেলা কৃষকদল ও বিএনপির অন্যান্য বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা।