আইনের শাসন, অবাধ নির্বাচন সুস্থ গণতন্ত্রের ভিত্তি: মার্কিন দূতাবাস

111
Social Share

আইনের শাসন, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন, মত প্রকাশের স্বাধীনতা এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতা একটি সুস্থ গণতন্ত্রের মূল ভিত্তি এবং এগুলো সবার অধিকার বলে মন্তব্য করেছে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস। গতকাল শনিবার এক বিবৃতিতে এ কথা বলা হয়েছে। 

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ভোট দেওয়ার জন্য নির্বাচনে যাওয়া, দুর্নীতি প্রকাশ করা, মানবাধিকার লঙ্ঘনের ঘটনা নথিভুক্ত করা কিংবা শান্তিপূর্ণভাবে সমাবেশে যোগ দেওয়া জনগণ ও বেসরকারি সংগঠনগুলো প্রতিদিন গণতন্ত্রের মৌলিক নীতিগুলোকে রক্ষা করে। নাগরিক ও বহুত্ববাদী সুশীল সমাজের সমালোচনামূলক ভূমিকা সম্পর্কে এই দৃঢ় প্রত্যয়ই জাতিসংঘের মানবাধিকার রক্ষাকারীদের ঘোষণার চালিকাশক্তি।

১৯৯৮ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে সম্মতিতে নেওয়া ঘোষণাপত্রে বলা হয়, স্বতন্ত্র ও অন্যদের সঙ্গে সহযোগিতায় প্রত্যেকেরই জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে মানবাধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতার সুরক্ষা ও বাস্তবায়নের জন্য প্রচার ও প্রচেষ্টার অধিকার রয়েছে। প্রতিশোধের ভয় ছাড়া মানবাধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য প্রতিটি দেশে জনগণকে স্বাধীন হতে হবে। মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে উদ্ধৃত করে বিবৃতিতে বলা হয়, কোনো গণতন্ত্রই নিখুঁত কিংবা চূড়ান্ত নয়। গণতন্ত্রের জন্য দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ও অবিরাম কাজের মাধ্যমে সব বাধা ভাঙতে হয়, সব অর্জন করতে হয়।

প্রসঙ্গত, গত শুক্রবার মানবাধিকার নিয়ে কাজ করা বেসরকারি সংগঠন ‘অধিকার’-এর নিবন্ধন নবায়ন না করার সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানায় জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনারের কার্যালয় (ওএইচসিএইচআর)। এর এক দিন পরই মার্কিন দূতাবাস এই বিবৃতি দিয়েছে।