অসহায়ের মত আজ তোমাকেই খুঁজছে

Social Share
অরুন সরকার রানার ফেসবুক থেকে
স্ত্রী শিলা ইসলাম অসুস্থ। ক্যান্সারের রোগী। লন্ডনে চিকিৎসাধীন। ৯ অক্টোবর, ২০১৭। অসুস্থ স্ত্রীর পাশে থাকতে লন্ডনে যাওয়ার আগে গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করতে যান সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। সে সময় সৈয়দ আশরাফকে জানানো হয়, সরকারের একজন মন্ত্রী হিসাবে তার স্ত্রীর চিকিৎসার ব্যয়ভার সরকার বহন করবে। প্রস্তাবের উত্তরে স্বল্পভাষী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম জানিয়ে দেন, ‘বনানীর বাড়িটা বিক্রি করে দিয়েছি, সেটা দিয়েই হয়ে যাবে।’
অনাড়ম্বড় জীবনে অভ্যস্ত এ নেতাকে চিকিৎসার জন্য স্ত্রীকে লন্ডন থেকে জার্মানি নেয়ার জন্য পর্যাপ্ত টাকা না থাকায় দু’বার প্লেনের টিকিটের তারিখও পরিবর্তন করতে হয়েছিলো।
১৯৯৬ থেকে টানা ৪ বারের সংসদ সদস্য ছিলেন সৈয়দ আশরাফ। প্রথম থেকেই তিনি মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৯৬-২০০১ বেসামরিক বিমান চলাচল ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী, ২০০৮ থেকে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী এবং তারপর জনপ্রশাসন মন্ত্রী।
সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী হিসেবে সরকারী প্লট এবং শুল্কমুক্ত গাড়ি ক্রয়ের  আইনগত সুবিধা পেয়েও তিনি তা গ্রহণ করেননি। ঢাকাতে ছিল না কোন ব্যক্তিগত প্লট, না ছিলো কোন ব্যক্তিগত গাড়ী। স্ত্রীর চিকিৎসা করাতে যেটা বিক্রি করেছিলেন, সেটা আসলে বাবার নামে সরকার কর্তৃক বরাদ্দকৃত প্লটে পুত্র হিসেবে নিজ শেয়ার ২ শতাংশ জমি, যা তিনি ভাই-বোনদের কাছেই বিক্রি করে দেন।
সৈয়দ আশরাফ, আপনার পিতা-তো ছিলেন জাতীয় ৪ নেতার অন্যতম। ৪ জনের তালিকায় প্রথমেই তাঁর নাম দেখতে পাই। তাঁর ছবি দেখতে পাই। স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি তিনি। কই, আপনিতো হাজার হাজার কোটি টাকা দুর্নীতি করে দেশ বিদেশে সম্পদের পাহাড় তৈরি করে যাননি! জানি, আপনার মৃত্যু দিবসে হয়তো শত গরু জবাই করে জাঁকজমক ভাবে মানুষকে খাওয়ানো হবে না। সে সম্পদ আপনি করে রেখে যেতে পারেননি, করেননি। আসলেই কি তা পরপারে আপনার শান্তি নিশ্চিত করতে পারতো? না। মোটেই না। হয়তো গুটিকয়েক স্বার্থপর মানুষ যারা আপনার কাছ থেকে ব্যবসা পায়নি, ঠিকাদারি পায়নি, আপনাকে ব্যবহার করে টাকা কামাতে পারেনি, তারা আপনাকে মনে রাখবে না। কিন্তু, আজকের মত দিনে অসহায়ের মত আমরা ঠিকই আপনাকে খুঁযে ফিরবো বার বার।
অরুণ সরকার রানা
সাধারণ সম্পাদক
বঙ্গবন্ধুকে সাংস্কৃতিক জোট কেন্দ্রীয় কমিটি।।