ধোনির সমর্থনে শচীনের উদাহরণ টানলেন কপিল

বেশ কিছুদিন ধরেই ভারতজুড়ে চলছে মাহেন্দ্র সিং ধোনিকে নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা। কবে অবসর নেবেন ভারতীয় দলের সাবেক এই অধিনায়ক? এটাই এখন ভারতীয় ক্রিকেটমহলে সবচেয়ে দামী প্রশ্ন।

কেউ পক্ষে আবার কেউ শক্তভাবে তার সমালোচনা করেছেন। কেউ বলছেন, ভারতীয় দলে এখনও প্রয়োজনীয় তিনি। কেউ আবার তার বিপক্ষে মুখ খুলছেন। বলছেন, কোহলিদের এক্ষুনি ধোনির বিকল্প খুঁজে বের করতে হবে। তবে এতদিন হয়ত নিজের সমর্থনে এমন কাউকে পেলেন ক্যাপ্টেন কুল, যাকে নিঃসন্দেহে দেশের সেরা অধিনায়ক এবং ক্রিকেটারের তালিকায় রাখা যায়। তিনি আর কেউ নন, ১৯৮৩ সালের বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক কপিলদেব।

কপিলের মতে, ধোনির মধ্যে এখনও ক্রিকেট বাকি রয়েছে। শুধু তাই নয়, ২০২০ সালের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্টেও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে চলেছেন মহেন্দ্র সিং ধোনি। হ্যাঁ, শুনতে অবাক লাগলেই এমনটাই দাবি তার।

আর এ কথার স্বপক্ষে কপিলদেব তুলে নিয়ে এসেছেন শচীন টেন্ডুলকারের প্রসঙ্গও।

পুণেতে একটি গলফ টুর্নামেন্টে অংশ নিতে এসে তিনি বলেন, ‘আমি বুঝতে পারছি না, কয়েকটি ম্যাচে মোটামুটি পারফরম্যান্স করায় কেন সবাই ধোনির সমালোচনা করছে। পারফরম্যান্স বিচার কখনই বয়স দিয়ে হয় না। বিশ্বকাপ জেতার সময় তো শচীনের বয়স ছিল ৩৮ বছর। কিন্তু তখন এই নিয়ে কেউ তো মুখে খোলেনি। ’

এখানেই শেষ নয়, কপিলের মতে, ভারতীয় দলে এখনও ধোনির বিকল্প আর কেউ নেই। প্রশ্ন তোলেন, ‘ধোনিকে যদি দল থেকে ছেঁটে ফেলা হয়, তাহলে তার জায়গায় কাকে দলে নেওয়া হবে?’

এদিকে মহেন্দ্র সিং ধোনিকে নিয়ে অজিত আগারকারের মন্তব্য ঘিরে ক্রিকেটদুনিয়া যতই তোলপাড় হয়ে যাক, যতই সোশ্যাল মিডিয়ায় ট্রোলড হোন সাবেক ভারতীয় পেসার; মহেন্দ্র সিং ধোনি নিজে বুঝিয়ে দিলেন, আগারকার কী বললেন না বললেন তাতে তার কিছু আসে-যায় না।

দুবাইয়ে শনিবার নিজের অ্যাকাডেমি উদ্বোধন করতে গিয়ে আগারকারের মন্তব্য প্রসঙ্গে ধোনি বলেন, “যার যার মতামত তার তার নিজস্ব। এটা নিয়ে আমি কী বলতে পারি?”

দিন কয়েক আগে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে টি-টোয়েন্টিতে ধোনি ব্যর্থ হওয়ায় আগারকার বলেছিলেন, ভারতীয় টিমের উচিত টি-টোয়েন্টিতে ধোনির বিকল্প খোঁজা। যা তীব্র প্রতিক্রিয়ার জন্ম দিয়েছিল। ধোনি সমর্থকরা শ্লেষাত্মকভাবে আগারকারকে টুইটারে ট্রোল করে লিখেছিলেন যে, ‘ধোনি প্রধানমন্ত্রী হলে আপনি নিছকই একজন বিধায়ক। অতএব, দয়া করে মুখটা বন্ধ রাখুন। ’

কিন্তু ধোনি এ দিন বুঝিয়ে দিলেন, এসবে তাঁর কিছুই যায় আসে না। পাশাপাশি ধোনি বলেন, ছত্রিশেও ভারতের জার্সিই তাকে ছুটিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। “ভারতের হয়ে খেলছি, এটা আমার কাছে এখনও বিরাট একটা মোটিভেশন। এটাই আমাকে এখনও ছুটিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। ” সঙ্গে ভারতের সর্বকালের অন্যতম সেরা অধিনায়ক যোগ করেছেন, “সবাই ঈশ্বরপ্রদত্ত প্রতিভা নিয়ে ক্রিকেট খেলতে আসে না। কিন্তু তারপরেও তারা অনেক দূর যায়। কারণ একটাই। প্যাশন। ক্রিকেটের প্রতি ভালবাসা। কোচদের উচিত, সেই প্যাশনটা খুঁজে বের করা। সবাই কিন্তু ভারতীয় দলের হয়ে খেলতে পারে না। ”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *